ভূমিধস নামল দার্জিলিঙে। নির্দিষ্ট করে বললে দার্জিলিং পাহাড়ের মানভনজঙ্গ রোডের উপর ধোবি খোলায় ধস নামে। পাহাড়ের উপর থেকে কাদা ও বোল্ডারের তাল রাস্তায় উপর হুড়মুড়িয়ে নেমে আসে।

ভূমিধস (landslide) নামল দার্জিলিঙে (darjeeling)। আরও নির্দিষ্ট করে বললে দার্জিলিং পাহাড়ের মানভনজঙ্গ রোডের উপর ধোবি খোলায় (dhobi khola) গত সন্ধেয় ধস নামে। পাহাড়ের উপর থেকে কাদা ও বোল্ডারের তাল রাস্তায় উপর হুড়মুড়িয়ে নেমে আসে। ফলে মানভনজঙ্গের সঙ্গে বিভিন্ন জায়গার সরাসরি সংযোগ বিপর্যস্ত।  

বিপর্যয় চলছেই...
গত কয়েক দিন ধরেই বিপর্যয় চলছে দার্জিলিঙে। দিনপাঁচেক আগে দুধিয়ায় মুষলধারে বৃষ্টিতে বিপত্তি দেখা দেয়। হড়পা বান আসে বালাসন নদীতে। তার জেরে নদীতে ঘুরতে যাওযা শিলিগুড়ির ১১ জন কলেজ পড়ুয়া আটকে পড়েন। খবর পেতেই ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ, দমকল। সকাল থেকে রাত, দীর্ঘক্ষণ ধরে চেষ্টা চালিয়ে ১১ জন পড়ুয়াতে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকাজে হাত লাগান স্থানীয় বাসিন্দারাও। বস্তুত সার্বিক ভাবে উত্তরবঙ্গে পাহাড়ের ছোট-বড় বিপর্যয়ের ঘটনা শোনা যাচ্ছে গত চার-পাঁচ দিন ধরে। যেমন গত ২ আগস্ট কালিম্পঙের কালীঝোরার কাছে ১০ নম্বর জাতীয় সড়কে ধস নামে। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় রাস্তা পরিষ্কার করার কাজ শুরু হয়। বহু গাড়ি আটকে পড়ে । ঘটনার ৫ ঘণ্টা পর রাস্তা পরিষ্কার করা সম্ভব হয় বলেই খবর। তত ক্ষণ বিকল্প রাস্তার মাধ্যমে যানবাহনগুলিকে বাইপাস করানোর চেষ্টা করা হয়। কিন্তু ওই ধসের পর শিলিগুড়ির সঙ্গে গ্যাংটক এবং কালিম্পঙের সড়ক যোগাযোগ ব্যাহত হয়েছিল। শিলিগুড়ি থেকে গ্যাংটক এবং কালিম্পং যাওয়ার রাস্তা অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। একদিকে যেমন শিলিগুড়ি থেকে কালিম্পং এবং সিকিম যাওয়ার গাড়িগুলি আটকে যায়। আটকে পড়ে ফিরতি গাড়িও।

পর্যটকের ভিড়...
আবহাওয়া দফতর তখনই জানিয়েছিল, দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির ছবি যা-ই হোক, উত্তরবঙ্গে ভারী বৃষ্টি চলবে। বিশেষত দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার এবং জলপাইগুড়ি এই পাঁচ জেলায় বিক্ষিপ্ত ভাবে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস মিলেছিল। এমনিতে এই সময়ে পাহাড়ে পর্যটকের ভিড় তুলনামূলক ভাবে কম। কিন্তু পাহাড়ে বর্ষাও অনেককে আকর্ষণ করে। ফলে তার টানে গিয়েও পর্যটকদের আটকে পড়তে হয়েছে, এমন ঘটনাও কম নয়। 
এর মধ্যেই আবার দার্জিলিঙে ভূমিধসের খবর। 
Share To:

kakdwip.com

Post A Comment:

0 comments so far,add yours