WEATHER

Top News


২২ নভেম্বর ছিল আস্থা ভোট। সেখানে দুই নির্দল প্রার্থীর সমর্থন পায় কংগ্রেস। যদিও তারপরেও পুরবোর্ড ঘটন নিয়ে লাগাতার বেগ পেতে হচ্ছিল হাত শিবিরকে।

টানাপোড়েন চলছিলই। শেষ পর্যন্ত আইনি মারপ্যাঁচের জেরে সংখ্যাধিক্য পেয়েও ক্ষমতা থেকে আপাতত দূরেই থাকতে হল কংগ্রেসকে (Congress)। ঝালদা পুরবোর্ডের (Jhalda Municipality) চেয়ারম্যান হিসাবে শিলা চট্টোপাধ্যায়ের নাম ঘোষণা করে কংগ্রেস। এই শিলা চট্টোপাধ্যায় আবার নির্দল প্রার্থী ছিলেন। তাঁর দায়িত্ব নেওয়ার তোড়জোড় শুরু হয়ে গিয়েছিল। তার আগেই আচমকা রাজ্য সরকারের জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে তৃণমূলের জবা মাছুয়ার নামে এক কাউন্সিলরকে পৌর প্রধানের দায়িত্ব দেওয়া হয়। যদিও তারপরেও কংগ্রেস তাঁদের নির্ধারিত কর্মসূচি সম্পন্ন হয়েছে। সেই সভায় কংগ্রেসের পাঁচ জন আর দুই নির্দল কাউন্সিলরের সমর্থনে পৌর প্রধান নির্বাচিত হন শীলা চট্টোপাধ্যায়। তবে এখনও এতে সরকারি সিলমোহর পড়েনি। 


প্রসঙ্গত, শুক্রবার রাজ্যপাল এক নির্দেশ জারি করেন। সেই নির্দেশিকাতে বলা হয় ওই পুরসভায় আপাতত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করবেন ১০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জবা মাছুয়া। পুর আইন মেনেই রাজ্যপাল নির্দেশ দিয়েছেন বলে দাবি প্রাক্তন পুর চেয়ারম্যান সুরেশ আগরওয়ালের। ক্ষুব্ধ কংগ্রেস রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্ত কে দুর্ভাগ্যজনক আখ্যা দিয়েছে। এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টেও যাচ্ছে হাত শিবির। অন্যদিকে রাজ্য সরকারের তরফে দায়িত্ব পাওয়া জবা মাছুয়া দায়িত্ব পেলেও তা এক মাসের জন্য। চাপানউতরের মধ্যে তৃণমূলের দাবি সবই হয়েছে আইন মেনে। 

প্রসঙ্গত, কংগ্রেস কাউন্সিলর তপন কান্দু খুনের পর থেকেই বাংলার রাজ্য-রাজনীতিতে বিস্তর চর্চা হয় ঝালদা পৌরসভাকে নিয়ে। পুরভোটে জিতেও খুন হয়েছিলেন তপন কান্দু। পরবর্তীতে তপনের স্ত্রী পূর্ণিমা কংগ্রেসের প্রার্থী হয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। ঝালদা পুরসভায় আসনের সংখ্যা ১২টি। এর মধ্যে পাঁচটি করে আসনে জেতে তৃণমূল ও কংগ্রেস। যদিও জয়ী দুই নির্দল প্রার্থী সমর্থন করে কংগ্রেসকে। তাঁরা পরবর্তীতে সমর্থন তুলে নেওয়ায় অনাস্থা আনে কংগ্রেস। ২২ নভেম্বর ছিল আস্থা ভোট। সেখানে দুই নির্দল প্রার্থীর সমর্থন পায় কংগ্রেস। যদিও তারপরেও পুরবোর্ড ঘটন নিয়ে লাগাতার বেগ পেতে হচ্ছিল হাত শিবিরকে। এবার এই জট কাটাতে হাইকোর্টে জল গড়ালে নতুন কিছু সিদ্ধান্ত হয় কিনা এখন সেটাই দেখার। 

অভিষেকের মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিক্রিয়া চাওয়া হলে, চেনা ভঙ্গিতে শুভেন্দু বলেন, 'ওঁর কথার উত্তর দেব না। ওঁ আমার প্রতিপক্ষ নয়।'


বিধানসভায় আমাকে ধরতে গিয়েছিলেন না? ভেবেছিলেন একাই চলে যাব?’ নাম না করে মুখ্যমন্ত্রী মমতাকে নিশানা করে এমনটাই বললেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari)। শনিবাসরীয় দুপুর যখন যুযুধান দুই পক্ষের সেনাপতির বক্তৃতায় সরগরম, তখন বিরোধী দলনেতার গলায় শোনা গেল গত সপ্তাহের বিধানসভার সেই দিনের কথা, যে দিন বিধানসভায় নিজের কক্ষে তাঁকে ডেকেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সাক্ষাৎ নিছকই ‘সৌজন্য’ নাকি তার পিছনে রাজনৈতিক কোনও কারণ ছিল, তা নিয়ে বিতর্ক-জল্পনা হয়েছে বিস্তর। আর এবার সেই সাক্ষাৎ নিয়েই বিস্ফোরক দাবি করলেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক।


সব আইনি জটিলতা শেষে শুক্রবার তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের লোকসভা কেন্দ্র ডায়মন্ড হারবারের সভাস্থলে উপস্থিত হন শুভেন্দু। বক্তৃতার ছত্রে ছত্রেই তিনি এদিন নিশানা করেছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায় ও মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়কে। সভা যখন প্রায় শেষের দিকে, তখন মঞ্চে ওঠেন বিজেপির কয়েকজন কর্মী, যাঁরা এদিনের সভায় আসার পথে আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ। তাঁদের পাশে নিয়ে শুভেন্দু বলেন, ‘এর নাম গণতন্ত্র?’

এরপরই মুখ্যমন্ত্রীর নাম না করে শুভেন্দু বলেন, ‘বিধানসভায় আমাকে ধরতে গিয়েছিলেন না? ভেবেছিলেন একাই চলে যাব, সেট করে নেব? সেট করার পার্টি আমি নই। তিনজন এমএলএ-কে সঙ্গে নিয়ে গিয়েছি। আপনাকে হারিয়েছি, এবার আপনাকে তাড়াব।’

পরে মঞ্চ থেকে নেমে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন শুভেন্দু। অভিষেকের মন্তব্যের প্ররিপ্রেক্ষিতে প্রতিক্রিয়া চাওয়া হলে, চেনা ভঙ্গিতে শুভেন্দু বলেন, ‘ওঁর কথার উত্তর দেব না। ওঁ আমার প্রতিপক্ষ নয়।’ ফের মমতার নাম না করে শুভেন্দু বলেন, ‘সেদিন আমাকে কার্যত হাত ধরে সব মেটাতে চেয়েছিলেন, আমি সে সুযোগ দিইনি। আমি মনোজ টিগ্গা, অগ্নিমিত্রা পল, অশোক লাহিড়ীকে সঙ্গে নিয়ে গিয়ে সেই সুযোগ দিইনি।’

 এ বার চোটের তালিকায় অ্যালেক্স তেলেস এবং গ্যাব্রিয়েল জেসুস। চোটের গভীরতা এতটাই...

ব্রাজিল কার্যত মিনি হাসপাতাল। চোট রয়েছে দলের তারকা ফুটবলার নেইমারের। তিনি কবে ম্যাচে ফিরতে পারবেন, তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। চোট রয়েছে অ্যালেক্স স্যান্ড্রো এবং দানিলোরও। এ বার চোটের তালিকায় অ্যালেক্স তেলেস এবং গ্যাব্রিয়েল জেসুস। চোটের গভীরতা এতটাই, দু-জনই বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গেলেন। নকআউট পর্ব আগেই নিশ্চিত হয়েছিল ব্রাজিলের। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে ক্য়ামেরুনের সে কারণেই বিরুদ্ধে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পথে হেঁটেছিলেন ব্রাজিল কোচ তিতে। পরীক্ষার ম্যাচই বিশ্বকাপ থেকে ছিঁটকে দিল তাঁদের। বিস্তারিত

ক্যামেরুনের বিরুদ্ধে প্রথম একাদশে ৯টি পরিবর্তন করেছিলেন ব্রাজিল কোচ তিতে। পরীক্ষার ম্যাচে একঝাঁক সুযোগ নষ্ট করে ব্রাজিল। যার খেসারত দিতে হয়েছে পাঁচ বারের চ্যাম্পিয়নকে। বিশ্বকাপের মঞ্চে প্রথম বার কোনও আফ্রিকান দেশের কাছে হার ব্রাজিলের। অ্যাডেড টাইমে গোল করে ক্যামেরুনের ইতিহাসের নায়ক ভিনসেন্ট আবুবাকার। হারের চেয়েও ব্রাজিল শিবিরে অস্বস্তি দুই ফুটবলারের চোট। স্ট্রাইকার গ্যাব্রিয়েল জেসুস এবং লেফ্ট ব্যাক এই ম্যাচেই প্রথম একাদশে সুযোগ পেয়েছিলেন। আর এক ম্যাচ খেলেই ছিটকে গেলেন। প্রশ্ন উঠছে তাঁদের ফিটনেস নিয়েও। একটা ম্যাচ খেলেই কীভাবে ছিটকে যান! তাঁদের কি আগে থেকেই চোট ছিল? দু-জনেরই ডান হাঁটুতে চোট লেগেছে।


৩২টি দলের মধ্যে ১৬টি দলের বিদায়। বাকি ১৬টি দল পৌঁছে গিয়েছে পরের রাউন্ডে। গ্রুপ পর্ব শেষে এ বার পালা নকআউটের (Round of 16)।

জার্মানি, বেলজিয়াম, উরুগুয়ের মতো দলগুলির বিদায়। গ্রুপ পর্বের ম্যাচে হারের স্বাদ পেয়েছে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, পর্তুগাল, ফ্রান্সের মতো শক্তিধর দেশগুলি। এশিয়া ও আফ্রিকান দলগুলির চমক। ভিএআর প্রযুক্তি নিয়ে বিতর্ক, রাত জেগে দ্বিতীয়ার্ধের হার না মানা লড়াই দেখেছে ফুটবল বিশ্ব (Qatar World Cup 2022)। কাতার বিশ্বকাপের টান টান প্রথম রাউন্ডের পর্ব শেষ হয়েছে ২ ডিসেম্বর। ৩২টি দলের মধ্যে ১৬টি দলের বিদায়। বাকি ১৬টি দল পৌঁছে গিয়েছে পরের রাউন্ডে। গ্রুপ পর্ব শেষে এ বার পালা নকআউটের (Round of 16)। দম ফেলার ফুরসত নেই দলগুলির। শনিবার অর্থাৎ ৩ ডিসেম্বর থেকেই শুরু হয়ে যাচ্ছে শেষ ষোলোর লড়াই। কোন টিম কার মুখোমুখি? কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠার পথে কতটা চ্যালেঞ্জের মুখে আপনার প্রিয় টিম? টিভি৯ বাংলার এই প্রতিবেদনে দেখে নিন রাউন্ড অব সিক্সটিনের পুরো ফিক্সচার।


গ্রুপ এ, বি, সি, ডি, ই, এফ, জি, এইচ থেকে দুটি করে দল উঠেছে শেষ ষোলোয়। গ্রুপ ‘এ’ থেকে পরের রাউন্ডে গিয়েছে নেদারল্যান্ডস এবং সেনেগাল। গ্রুপ ‘বি’ থেকে ইংল্যান্ড ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। গ্রুপ ‘সি’ থেকে আর্জেন্টিনা এবং পোল্যান্ড। গ্রুপ ‘ডি’ থেকে ফ্রান্স এবং অস্ট্রেলিয়া। গ্রুপ ‘ই’ থেকে নকআউটে খেলবে জাপান ও স্পেন। গ্রুপ ‘এফ’ থেকে মরক্কো, ক্রোয়েশিয়া। গ্রুপ ‘জি’ থেকে পরের রাউন্ডে গিয়েছে ব্রাজিল ও সুইৎজারল্যান্ড। গ্রুপ ‘এইচ’ থেকে শেষ ষোলোর ঘরে পা দিয়েছে পর্তুগাল ও দক্ষিণ কোরিয়া।


শুক্রবারই পাক কূটনীতিবিদ উবেদই-উর-রেহমান নিজামানিকে লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। তাঁকে রক্ষা করতে গিয়ে পাক নিরাপত্তারক্ষী ইসরার মহম্মদ গুরুতর জখম হয়েছেন।

ফের আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে সন্ত্রাসবাদী হামলা। এবার কাবুলে পাক দূতাবাসে হামলা চালানো হল। দূতাবাস লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি চালাল দুষ্কৃতীরা। দূতাবাসের এক নিরাপত্তারক্ষী গুলিবিদ্ধও হয়েছেন। শনিবার সকালে এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। পাক কূটনীতিবিদকে হত্যা করার চক্রান্ত করেই এই হামলা বলে ইসলামাবাদের দাবি। তবে তিনি অক্ষত রয়েছেন। এই হামলার তীব্র নিন্দা করেছেন তালিবান বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র আব্দুল কাহার বালখি। তালিবান নিরাপত্তা সংস্থা এই ঘটনার তদন্ত করবে বলেও টুইট করে জানিয়েছেন তিনি।


কাবুল পুলিশের মুখপাত্র জানান, এদিন সকালে কাবুলে পাক দূতাবাস লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি চালানো হয়। দূতাবাসের সামনের একটি বহুতল থেকে গুলি ছোড়ে দুষ্কৃতীরা। ঘটনায় পাক দূতাবাসের এক কর্মী গুরুতর জখম হয়েছেন। তবে পুলিশের তৎপরতায় আগ্নেয়াস্ত্র সহ সন্দেহভাজন এক দুষ্কৃতী গ্রেফতারও হয়েছে। দুটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার হয়েছে বলে বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে কাবুল পুলিশ। তবে এই হামলার পিছনে কে বা কারা রয়েছে, তা এখনও স্পষ্ট নয়। কোনও জঙ্গি সংগঠন এখনও পর্যন্ত হামলার দায় স্বীকার করেনি। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে বলে কাবুল পুলিশ জানিয়েছে। তবে কূটনীতিবিদ তথা পাকিস্তান দূতাবাসের হেড অফ স্টেট উবেদই-উর-রেহমান নিজামানিকে হত্যার ষড়যন্ত্র করেই এই হামলা বলে পাক বিদেশমন্ত্রকের দাবি।

প্রসঙ্গত, শুক্রবারই পাক কূটনীতিবিদ উবেদই-উর-রেহমান নিজামানিকে লক্ষ্য করে হামলা চালানো হয়। তাঁকে লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। যদিও তিনি অক্ষত রয়েছেন। তাঁকে রক্ষা করতে গিয়ে পাক নিরাপত্তারক্ষী সিপাই, ইসরার মহম্মদ গুরুতর জখম হয়েছেন বলে পাক বিদেশমন্ত্রক জানিয়েছে। সেই ঘটনার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কাবুলে পাক দূতাবাসে হামলার পিছনে উবেদই-উর-রেহমান নিজামানিকে হত্যার ষড়যন্ত্র রয়েছে এবং এই হামলার নেপথ্যে TTP জঙ্গির হাত রয়েছে বলে ইসলামাবাদের দাবি।

অনেকেই আছেন, যাঁরা খবররের সত্যতা যাচাই না করেই Facebook-এ পোস্ট করে দেন। মনে রাখবেন, সেই খবর যদি ভুয়ো ধরা পড়ে, তাহলে হাজতবাস পর্যন্ত করতে হতে পারে।

ফেক নিউজ়ের রমরমার বাজারে কী ঠিক আর কী ভুল, তা ঠাওর করে ওঠা সাধারণ মানুষের জন্য সত্যিই দুষ্কর। Facebook থেকে শুরু করে টুইটার, হোয়াটসঅ্যাপ থেকে শুরু করে আরও যাবতীয় যা-যা সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম রয়েছে, সর্বত্র ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়ছে ভুয়ো খবর। তবে সবথেকে বেশি পরিমাণে ভুয়ো খবর দেখতে পাওয়া যায় ফেসবুকেই। কোন খবর ভুয়ো, তা ছাপোষা, সাধারণ মানুষের পক্ষে বোঝা খুবই কঠিন বিষয়। অনেকেই আছেন, যাঁরা খবররের সত্যতা যাচাই না করেই Facebook-এ পোস্ট করে দেন। মনে রাখবেন, সেই খবর যদি ভুয়ো ধরা পড়ে, তাহলে হাজতবাস পর্যন্ত করতে হতে পারে।.


কয়েকদিন আগে ভিয়েতনামের এক ব্যক্তি Facebook-এ ভুল তথ্য পোস্ট করেছিলেন। সেই খবরের সত্যতা তিনি যাচাই করেননি। আর তার জন্যই বছর দুয়েক হাজতবাস করতে হয় সেই ব্যক্তিকে। মনে রাখবেন, সেই ঘটনা যে ভিয়েতনামে ঘটেছিল বলে সে দেশের জন্যই কেবল নিয়মটি প্রযোজ্য তা নয়। বিশ্বের যত দেশে Facebook রয়েছে, সেই সব দেশেই ভুয়ো খবর পোস্ট করলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির ভয়ঙ্কর পরিণাম হতে পারে।

জেলে যেতে হতে পারে

Facebook-এ ভুল খবর বা তথ্য পোস্ট ভারতের ব্যবহারকারীদের জন্যও ভয়ঙ্কর হতে পারে। তার কারণ, ভুয়ো খবর ঠেকাতে সরকার ও ফেসবুকের পক্ষ থেকে কঠোরতম নিয়ম রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে আপনার জেনে রাখা উচিত, ফেসবুকে কোন কোন ভুলে আপনাকে জেলে যেতে হতে পারে। তবে শুধু ফেসবুক নয়। সেই সঙ্গেই আবার ইনস্টাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপের মতো অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতেও ভুল খবর পোস্ট করলে হাজতবাস করতে হতে পারে।

সোশ্যাল মিডিয়ার নিয়ম কী বলছে

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুল তথ্য পোস্ট করা থেকে বিরত থাকুন। ভাল করে যাচাই না করে কোনও পোস্ট করা উচিত নয়। পাশাপাশি যে কাউকে, যে কোনও মেসেজ পাঠানোর আগে তা ভাল করে ক্রসচেক করাও দরকার। আপনি যদি কোনও ভাবে ফিল্ম পাইরেসিতে জড়িত থাকেন, তাহলে সিনেম্যাটোগ্রাফি অ্যাক্ট 1952 অনুযায়ী 3 বছরের সাজা এবং 10 লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানা হতে পারে। এরকম একটা পরিস্থিতিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনও ছবি, ভিডিয়ো শেয়ার করার আগে কপিরাইটের দিকে ভাল করে খেয়াল রাখতে হবে।

এতো না হয় গেল সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যাপার। কিন্তু গুগলেও এমন অনেক বিষয় থাকে, যেগুলি আপনার সার্চ করা উচিত নয়। যেমন ধরুন, গর্ভপাত কীভাবে করতে হয়, তা গুগল সার্চ করাটা বেআইনি। এমনটা করলে আপনাকে জেলে যেতে হতে পারে। কারণ, ভারতে গর্ভপাত আইনত অপরাধ। আবার কীভাবে বোমা বানাতে হয়, এমন বিষয়ও যদি গুগল সার্চ করেন, তারও পরিণতি ভয়ঙ্কর হতে পারে।


শুক্রবার সকালে আচমকাই হাসপাতালে ভর্তি হতে হয় গায়ক জুবিন নওটিয়ালকে। সিঁড়ি থেকে পড়ে গিয়ে গুরুতর দুর্ঘটনার সম্মুখীন হন তিনি।

শুক্রবার সকালে আচমকাই হাসপাতালে ভর্তি হতে হয় গায়ক জুবিন নওটিয়ালকে। সিঁড়ি থেকে পড়ে গিয়ে গুরুতর দুর্ঘটনার সম্মুখীন হন তিনি। তাঁর মুখপাত্র সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন কনুই ভেঙে গিয়েছে তাঁর, পাঁজরে আঘাত লেগেছে, মাথাতেও আঘাত লেগেছে। সেই ঘটনার প্রায় ২৪ ঘণ্টা পার হয়েছে। ৩৩ বছরের এই গায়ক এখন কেমন আছেন? জানা যাচ্ছে, তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল। ডান হাতে হয়েছে অস্ত্রোপচার। হাসপাতাল থেকে ছেড়েও দেওয়া হয়েছে তাঁকে। হাসপাতালে থাকাকালীন জুবিন থেকে নিজের একটি ছবি শেয়ার করে লেখেন, “সবার আশীর্বাদের জন্য অনেক অনেক শুভেচ্ছা। ভগবান আমায় উপর থেকে দেখছেন। সেই কারণেই অনেক বড় এক দুর্ঘটনার থেকে রক্ষা পেলাম আমি।”



তবে জানা যাচ্ছে, আপাতত বেশ কয়েকদিন সম্পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে হবে তাঁকে। গায়কের হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার ঘটনায় আপাতত কিছুটা স্বস্তিতে তাঁর ভক্তরা।

নতুন প্রজন্মের জনপ্রিয় গায়ক জ়ুবিন। অরিজিৎ সিং, জ়ুবিন নটিয়াল – এই দুই গায়কই এই মুহূর্তে মাতিয়ে রেখেছেন ভারতীয় গানের জগৎ। একদিকে অরিজিৎ যেমন বাঙালি গায়ক, জ়ুবিন জন্মেছেন উত্তরাখণ্ডে। তাঁর জন্মস্থান দেহরাদুন। ৩৩ বছর বয়সেই তুমুল সাফল্য পেয়েছেন জ়ুবিন। ‘লুট গয়ে’, ‘হমনবা মেরে’র মতো জনপ্রিয় গান গেয়েছেন জ়ুবিন। গেয়েছেন ‘রাতা লম্বিয়াঁ’, ‘তুঝে কিতনে চাহনে লগে হম’, ‘তুম হি আনা’, ‘বেওয়াফা তেরা মাসুম চেহরা’র মতো গানও। হাতে রয়েছে বহু কাজও। আপাতত তিনি কবে সুস্থ হয়ে কাজে ফিরবেন সেই দিকেই তাকিয়ে জুবিনের ভক্তরা।

বেহালায় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে শুভেন্দু বলে গেলেন, "আমি ওখানে যাব। যে কটা লোক ওখানে প্রাণ নিয়ে আসতে পেরেছেন, তাঁদের উদ্দেশে বার্তা দেব।"

বেহালার থেকে ইতিমধ্য়েই ডায়মন্ড হারবারের (Diamond Harbour) উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari)। যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলে গেলেন, “আমি ওখানে যাব। যে কটা লোক ওখানে প্রাণ নিয়ে আসতে পেরেছেন, তাঁদের উদ্দেশে বার্তা দেব। পরবর্তী অ্যাকশন, ব্যবস্থা সবই হবে, ছাড়ার কোনও জায়গা নেই।” প্রসঙ্গত, ডায়মন্ড হারবারে গতরাতে শুভেন্দু অধিকারীর সভামঞ্চ ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছিল। সভা বানচাল করে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল বলে সুর চড়াচ্ছে বিজেপি। এরই মধ্যে শুক্রবার রাতে শুভেন্দু চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিলেন, যাই হয়ে যাক, সভা হবেই। এদিনও সেই একই শরীরি ভাষা দেখা গেল শুভেন্দু অধিকারীর গলায়।

যে পথে বেহালা থেকে ডায়মন্ড হারবারের দিকে যাবেন শুভেন্দু অধিকারী, সেই পথে বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভের খবরও প্রকাশ্যে এসেছে। এদিকে এই একই দিনে কলকাতা থেকে কাঁথিতে সভা করতে যাচ্ছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই প্রসঙ্গে কারও নাম না করে শুভেন্দু বলেন, “আমিও চাইলে কোলাঘাট থেকে মারিশদা পর্যন্ত ২০ জায়গায় কাঠের গুড়ি ফেলে দিতে পারি। তিন সেকেন্ড লাগবে আমার। কিন্তু করব না।”

প্রসঙ্গত, শুক্রবার রাতে শুভেন্দুর সভাস্থলে হামলার অভিযোগ তুলেছে বিজেপি শিবির। কেন গতরাতের এই হামলা? শাসক পক্ষ কি ভয় পাচ্ছে বলে মনে করছেন বিরোধী দলনেতা? সাংবাদিকদের প্রশ্নের সটান জবাব, “ভয় না পেলে করবে কেন এমন? আধ ঘণ্টার বক্তৃতা করব। অন্যরাও বলবেন। একঘণ্টার সভা, চারটের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে। শালীনতা বজায় রেখে রাজনৈতিক আক্রমণ-প্রতি আক্রমণ হবে। এটাই তো গণতন্ত্রের অঙ্গ।” ভূপতিনগরের বোমা বিস্ফোরণে চারজন মারা গিয়েছে বলেও এদিন বেহালা থেকে বেরোনোর সময় দাবি করেন শুভেন্দু অধিকারী।

পূর্ব মেদিনীপুরের তৃণমূলের সভা ঠিকঠাকভাবে আয়োজিত হওয়া প্রসঙ্গে বলেন, “আমরা ওই সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করি না।” শান্তিকুঞ্জের সামনের বাইক নিয়ে একদল লোক ঘোরাফেরা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে, সেই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “সব ভিডিয়ো ক্যামেরায় তোলা হচ্ছে। হাইকোর্টে বলব। আমরা বিচারব্যবস্থার উপর গণতন্ত্রের উপর বিশ্বাস করি। কখনও এগুলি করতে নেই। চিরদিন কাহারও সময় নাহি যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও চুলের মুঠো ধরে সিঙ্গুর থেকে তুলে নিয়ে এসেছিল। তাঁকেও কাঁদতে কাঁদতে গান্ধীমূর্তির নীচে বসতে হয়েছিল। তাঁর লোক আজ যা করছে, তাঁদের ক্ষেত্রেও এরকম দিন একদিন আসতে পারে। কিন্তু আমরা এসব চাই না।”


সবমিলিয়ে এদিন দুই শিবিরের দুই হেভিওয়েটের মেগা ইভেন্ট নিয়ে জোর চর্চা রাজ্য রাজনীতির অন্দরমহলে। একদিকে শান্তিকুঞ্জের থেকে ঢিল ছোড়া দূরত্বে সভা করতে যাচ্ছেন অভিষেক। আর অন্যদিকে অভিষেকের লোকসভা কেন্দ্র ডায়মন্ড হারবারে সভা করতে যাচ্ছেন অভিষেক। আর এই নিয়েই জোর রাজনৈতিক চাপানউতোর তৈরি হয়েছে। এখন দেখার সভামঞ্চ থেকে কার বক্তৃতার ঝাঁঝ কতটা থাকে।

বিশ্বমঞ্চে শাকি এই আচরনে নিন্দার ঝড় উঠেছে। তাঁর এই কুরুচিপূর্ন আচরনের ভিডিও ইতিমধ্যেই ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সুইজারল্যান্ডের (Switzerland) বিপক্ষে জয় ছাড়া বিকল্প পথ খোলা ছিল ছিল না সার্বিয়ার কাছে। সার্বিয়ার বিপক্ষে ড্র করলেই শেষ ষোলোয় টিকিট নিশ্চিত ছিল সুইসদের। এমন সমীকরণে সার্বিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামে রজার ফেডেরারের দেশ। শুক্রবার রাতে (Qatar World Cup 2022) সার্বিয়াকে হারিয়ে শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছে সুইৎজারল্যান্ড। দ্বিতীয়ার্ধে তখন এক গোলে এগিয়ে সুইসরা। মাঠের মধ্যেই প্রতিপক্ষ সার্বিয়াকে লক্ষ্য করে নোংরা ইঙ্গিত করতে দেখা গেল সুইস অধিনায়ক গ্রানিত জাকাকে (Granit Xhaka)। বিশ্বমঞ্চে কী করলেন তিনি? তুলে ধরল

শুক্রবার রাতে দোহার স্টেডিয়াম ৯৭৪-এ ম্যাচের শুরুতেই শাকিরির গোলে লিড পায় সুইসরা। গোল হজম করে তেতে ওঠে সার্বিয়া। ৯ মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল করে এগিয়ে যায় সার্বিয়া। তবে প্রথমার্ধেই এমবোলোর গোলে সমতায় ফেরে সুইসরা। ২-২ গোলের সমতায় থেকে বিরতিতে যায় দুই দল। বিরতির পর মাঠে ফিরেই গোল পায় সুইৎজারল্যান্ড। ৪৬ মিনিটে রেমোর গোলে ব্যবধান হয় ৩-২। উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে মাঝেমাঝেই দু’পক্ষের আগ্রাসন ফুটে উঠছিল। সার্বিয়ার ফুটবলার নিকোলা মিলেনসোভিকের সঙ্গে জাকা বচসায় জড়ান। হাতাহাতিতেও পৌঁছে যায়। বচসা, হাতাহাতি ফুটবল মাঠে নতুন নয়। কিন্তু সুইস ক্যাপ্টেন যে মাঠেই অশ্লীল কাণ্ড ঘটনা ঘটিয়ে বসবেন, তা আন্দাজ করতে পারেনি।

মাঠেই নিজের গোপনাঙ্গে হাত দিয়ে নোংরা ইশারা করতে দেখা যায় সুইস অধিনায়ককে। সেই সঙ্গেই মুখের সব অদ্ভুত অঙ্গভঙ্গী করতে থাকেন।বিশ্বমঞ্চে তাঁর এই আচরণে নিন্দার ঝড় উঠেছে। ভিডিয়ো ইতিমধ্যেই ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়। তাতে অনেকেই বলছেন, “জাকার জায়গা ফুটবলে না হয়ে মাফিয়া দলে হতে পারত।” ম্যাচের পর অবশ্য আর্সেনাল তারকা সাংবাদিকদের জানান, আবেগের বশে তিনি এই কাজ করে ফেলেছেন! সার্বিয়াকে পরাজিত করে সুইসরা চলে গেছে নকআউট পর্বে। শেষ ষোলোতে সুইসদের প্রতিপক্ষ পর্তুগাল।


বিশ্বকাপের ইতিহাসে বহু নামজাদা ফুটবলারের ঝুলিতে রয়েছে এই শিরোপা। ২০১৮ বিশ্বকাপে হ্যারি কেন পেয়েছিলেন এই খেতাব।


বিশ্বকাপে সোনার বুট পাওয়ার আশা নিয়ে সব ফুটবলারই মাঠে নামেন। টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোল স্কোরারের হাতে তুলে দেওয়া হয় এই খেতাব। ছবি: টুইটার

বিশ্বকাপের ইতিহাসে বহু নামজাদা ফুটবলারের ঝুলিতে রয়েছে এই শিরোপা। ২০১৮ বিশ্বকাপে হ্যারি কেন পেয়েছিলেন এই খেতাব। কাতার বিশ্বকাপে ‘গোল্ডেন বুটের’ লক্ষ্যে এ বার কারা? ছবি: টুইটার

কাতার বিশ্বকাপে এই ‘গোল্ডেন বুটের’ একটা বেশ লম্বা তালিকা তৈরি হয়েছে। এই তালিকায় সবার উপরে সমান সংখ্যক গোল একই মেরুতে দাঁড়িয়ে রয়েছেন ৫ তারকা। ছবি: টুইটার

এখনও পর্যন্ত ৩টি গোল করে এক জায়গায় রয়েছেন ইকুয়েডরের এনার ভ্যালেনশিয়া, ফ্রান্সের কিলিয়ান এমবাপে, নেদারল্যান্ডসের কোডি গাকপো, ইংল্যান্ডের মার্কাস ব়্যাশফোর্ড, স্পেনের আলভারো মোরাতা। ২টি গোল করে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন ১৪ জন। ছবি: টুইটার

ইতিমধ্যেই এই গান জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

২০০৬ সালে বিশ্বকাপ ফুটবলে যাত্রা শুরু ঘানার। দক্ষিন আফ্রিকার এই দেশের প্রাপ্তির ঝুলি বেশ লম্বা। চারবারের আফ্রিকান চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ী ঘানা, দু-বার অনূর্ধ্ব ১৭ ও ফিফা অনূর্ধ্ব ২০’র বিশ্বকাপের শিরোপাও অর্জন করেছে। ছবি: টুইটার

ঘানায় ফুটবল অনেকটা উৎসবের মতো উদযাপিত হয়। ঘানার মানুষের কাছে ভালবাসা মানেই ফুটবল। ফুটবলকে ভালোবেসে ঘানারই এক বাসিন্দা গ্রেস অ্যাশাই তাঁদের ভাষাতে একটি গান বেঁধেছেন। গানটির নাম ‘This is us’। ইতিমধ্যেই এই গান জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ছবি: টুইটার

ঘানার ফুটবলারদের ড্রেসিংরুম থেকে শুরু করে টিম বাস, রাস্তাঘাট— সর্বত্র কান পাতলে শোনা যাচ্ছে এই গান। ঘানার রঙিন গ্যালারি মাতাচ্ছে এই গান। দেশের প্রতি ভালোবাসা থেকে এই গান রচনা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন এই ব্যাক্তি। ছবি: টুইটার

ভোটের আগে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ছবিটা ক্রমে প্রকট হচ্ছে বলেও অভিযোগ তোলেন বিরোধীরা।

তৃণমূলের (Trinamool Congress) গোষ্ঠীকোন্দলের অভিযোগ উঠল ডুয়ার্সের কালচিনি ব্লকের লতাবাড়ি গ্রামপঞ্চায়েতে। গ্রামপঞ্চায়েত প্রধান আইন মানছেন না বলে অভিযোগ তুলেছেন তৃণমূলেরই পঞ্চায়েত সদস্যরা। তাঁরা এ নিয়ে ব্লক সভাপতির কাছে অভিযোগও জানান। এর আগে লতাবাড়ির গ্রামপঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তুলেছিলেন বিরোধী নেতারা। তবে এবার এই অভিযোগ নিয়ে সরব হলেন খোদ তৃণমূলেরই পঞ্চায়েত সদস্যরা। তাঁদের অভিযোগ, পঞ্চায়েত সদস্যদের অন্ধকারে রেখে অনেক কিছুই চলছে পঞ্চায়েতে। যদিও পঞ্চায়েত প্রধান অভিযোগ মানতে নারাজ।



তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য বিপ্লব ঘোষ বলেন, “গ্রামপঞ্চায়েতে অর্থের একটি কমিটি রয়েছে। সেই কমিটি ও প্রধানের সম্মতিতে নানা বিল পাশ হয়। তবে প্রধান কমিটির সদস্যদের সম্মতি ছাড়াই সেই বিল পাশ করে দিচ্ছেন। এ বিষয়ে আমরা পঞ্চায়েত সদস্যরা দলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকেও জানিয়েছি।’ অন্যদিকে প্রাক্তন লতাবাড়ি গ্রামপঞ্চায়েত প্রধান ও বর্তমান তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য প্রাণকুমার সরকার বলেন, “প্রধানের বিরুদ্ধে যা অভিযোগ তা দলের জেলা ও ব্লক সভাপতিকে জানিয়েছি।”

তবে এই অভিযোগ মানতে নারাজ লতাবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান সোনালি দাস চক্রবর্তী। তিনি বলেন, “এসব একটা চক্রান্ত। আমি কোনও ভুল কাজ করিনি, তার প্রমাণও আমি দিতে পারব।” এর আগে এই লতাবাড়ির প্রধানের বিরুদ্ধে একাধিকবার এরকমই অভিযোগ তুলে সরব হয়েছিলেন লতাবাড়ি গ্রামপঞ্চায়েতের বিরোধী দলনেতা ও বিজেপি কালচিনি ব্লক আহ্বায়ক অলোক মিত্র। তিনি জানান, “এটা তো হওয়ারই ছিল। আমি নিজে অনেকবার এর বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছি। এখন তার দলের নেতা যারা স্বচ্ছ রাজনীতিতে বিশ্বাসী তারাও এর বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছেন।”

প্রায়শই নিতম্বে ব্যথা, পেশীতে টান ধরা এসব ফেলে রাখবেন না। আগেভাগেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। রোজ নিয়ম করে ওয়ার্ক আউট জরুরি


বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী প্রতি বছর বিশ্বজুড়ে শুধুমাত্র হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় প্রায় ১ কোটি ৭৯ লক্ষ মানুষের। যে কোনও বয়সের যে কোনও মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন হৃদরোগে। কমবয়সীদের মধ্যে এই সমস্যা আরও বেশি। আর তাই সময় থাকতেই হার্টের যত্ন নিতে হবে। হার্ট যদি দু৪বল হয়ে যায় তাহলে তা ঠিক করে পাম্প করতে পারে না। আর হৃৎপিণ্ড যখন দুর্বল থাকে তখন তা আরও বেশি করে পাম্প করতে শুরু করে। এই অতিরিক্ত হার্ট পাম্পের থেকেই হৃদরোগ বিকল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। তবে এই সমস্যা একদিনে হয় না। দিনের পর দিন যদি এই সমস্যা হতে থাকে তখনই হার্ট ফেলের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তবে হার্ট যদি দুর্বল হয় তাহলে এই ৫ লক্ষণ প্রথম থেকেই দেখা দেয়।


প্রতিদিন যদি মাইগ্রেনের ব্যথা হয় তাহলে তাও কিন্তু হার্টের সমস্যার ইঙ্গিত দেয়। আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের মতে নিয়মিত মাইগ্রেনের ব্যথা হলে তা হার্টের জটিল সমস্যারই ইঙ্গিত তদেয়। এতে মূলত মাথার পিছনের দিকে ব্যথা হয়। আর তাই প্রথম থেকেই খাওয়া দাওয়ার ব্যাপারে সতর্ক হতে হবে।

পা ফোলাও কিন্তু হার্টের সমস্যার লক্ষণ। একটানা পা ঝুলিয়ে বসে থাকলে কিংবা গর্ভবতী অবস্থায় পা ফুলে যাওয়া স্বাভাবিক ব্যাপার। যদি পা ফোলার সঙ্গে ক্লান্তি থাকে তাহলে তা হার্ট অ্যার্টাকেরই লক্ষণ।

সমতল থেকে একটু উচ্চতায় চড়লেই যদি অসুবিধে হয়, পেশীতে টান ধরে, শ্বাস নিতে সমস্যা হয় তাহলে তাও কিন্তু দুর্বল হার্টের লক্ষণ। যদি অ্যানিমিয়া থাকে তাহলেও শ্বাসকষ্টের সমস্যা হয়। শরীরে প্রয়োজনের তুলনায় কম রক্ত থাকলেই চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুন। এছাড়াও হার্টের ভালভে ফ্যাট জমলে সেখান থেকেও শ্বাস নিতে সমস্যা হতে পারে। প্রায়শই নিতম্বে ব্যথা, পেশীতে টান ধরা এসব ফেলে রাখবেন না। আগেভাগেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। রোজ নিয়ম করে ওয়ার্ক আউট জরুরি। পাশাপাশি ডায়েটও মেনে চলতে হবে।