WEATHER

Top News


শুক্রবার সকালে সিউড়ি বিধানসভার আলুন্দা পঞ্চায়েতের জুনিদপুর গ্রামে যান দিদির দূত বিকাশ রায়চৌধুরী। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, আবাস যোজনায় বাড়ি তৈরির জন্য কাটমানি নিয়েছেন প্রধান।

শুক্রবার সকালে সিউড়ি বিধানসভার আলুন্দা পঞ্চায়েতের জুনিদপুর গ্রামে যান দিদির দূত বিকাশ রায়চৌধুরী। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, আবাস যোজনায় বাড়ি তৈরির জন্য কাটমানি নিয়েছেন প্রধান। আর বিধায়ককে সামনে পেয়ে প্রধানের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন গ্রামবাসীদের একাংশ। তাঁরা আবার নিজেদের তৃণমূল কর্মী সমর্থক বলেই দাবি করেছেন। এলাকার নিকাশি ব্যবস্থার দুরবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তাঁরা। প্রথমে প্রধান বিক্ষোভকারীদের বিরোধী দলের সদস্য বলে দাবি করতে থাকেন। প্রধান বলেন, “এই সমস্ত মিথ্যা অভিযোগ। কে কী করছে, সেটা আমি বলতে পারব না। এখন জব কার্ড হচ্ছে না। জব কার্ড দেওয়ার ক্ষমতা এখন কারোরই নেই। অপপ্রচার চলছে।” যাঁরা বিক্ষোভ দেখিয়েছেন, তাঁদের বিরোধী দলের সদস্য বলেছেন তিনি। কিন্তু বিক্ষোভকারীদের মধ্যে থেকেই স্লোগান ওঠে, প্রধান নিজের অপকর্ম ঢাকতে মিথ্যা কথা বলছেন। পরে অবশ্য স্থানীয় ক্লাবে বসে গ্রামবাসীদের অভিযোগ শোনেন বিধায়ক বিকাশ রায়চৌধুরী। প্রধানের পাশে দাঁড়িয়েই তিনি বলেন, “তৃণমূল কংগ্রেসের কোনও নেতা যদি মানুষকে নিয়ে ছিনিবিনি খেলেন, তাহলে তাঁর বিরুদ্ধে যে ব্যবস্থা নেওয়ার দরকার, তা দল নেবে।”


দিদির দূত’ কর্মসূচিতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়লেন সিউড়ির বিধায়ক বিকাশ রায় চৌধুরী। আবাস দুর্নীতি ইস্যুতে প্রধানের বিরুদ্ধেই অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখালেন তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। শুক্রবার সকালে ঘটনাকে ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে বীরভূমের সিউড়ি এলাকা। সিউড়ির বিধায়ক বিকাশ রায়চৌধুরীর সামনেই স্লোগান দিতে থাকেন তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। এভাবে প্রধানের বিরুদ্ধে বিধায়কের সামনে দলীয় কর্মীদের বিক্ষোভে স্বাভাবিকভাবেই অস্বস্তিতে তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। তবে এসবের মাঝে বিধায়কের সামনে নিজেদের অভিযোগই জানাতে পারলেন না গ্রামবাসীরা। সেই অভিযোগও রয়েছে।

সম্প্রতি যে স্টার আর্থিক দিক থেকে বিশ্বের চতুর্থ ধনী অভিনেতা হিসেবে চর্চিত, গোটা বিশ্বে যাঁকে অনেকেই এক নামে চেনেন, সেই শাহরুখ খানকেই নাকি চিনতেন না পাঠান অভিনেত্রী।


বলিউডে বর্তমানে অন্যতম চর্চিত বিষয় হল ‘পাঠান’ (Pathaan)। চারবছর পর বক্স অফিসে ফেরা মাত্রই ঝড় তুলেছেন শাহরুখ খান (Shah Rukh Khan)। সঙ্গে রয়েছে দীপিকা পাড়ুকোন ও জন আব্রাহমের সংযোজন। সব মিলিয়ে ছবি নাকি এক কথায় হিট। যদিও সোশ্যাল চোখ রাখেলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া বর্তমান। তবে আলোচনার কেন্দ্রে যে পাকাপোক্ত জায়গা করে নিয়েছে শাহরুখ খানের ছবি তা নিয়ে কোনও দ্বিমত নেই। একাধিক স্টারকাস্ট, সঙ্গে টানটান অ্যাকশন, সব মিলিয়ে ছবি নিয়ে একাধিক মন্তব্য ভক্তদের হাতে হাতে ঘুরছে। ছবি দেখা মাত্রই সোশ্যাল মিডিয়া মারফত শুভেচ্ছা জানাতে করণ জোহর লিখেছিলেন-‘ শাহরুখ খান দেশের সীমানার উর্ধ্বে’। সত্যি কি তেমনটা ঘটল? এবার প্রশ্ন তুলে ধরলেন খোদ ছবির নায়িকা। না, দীপিকা পাড়ুোকন নন। তিনি হলেন রিচেল মুসলিন। যাঁর সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারেকে নিয়ে এবার প্রশ্ন উঠল সোশ্যাল মিডিয়ায়।


সম্প্রতি যে স্টার আর্থিক দিক থেকে বিশ্বের চতুর্থ ধনী অভিনেতা হিসেবে চর্চিত, গোটা বিশ্বে যাঁকে অনেকেই এক নামে চেনেন, সেই শাহরুখ খানকেই নাকি চিনতেন না পাঠান অভিনেত্রী। হলিউডের এই অভিনেত্রীকে দেখা যায় পাঠান ছবিতে। এই তাঁর প্রথম হিন্দি ছবিতে কাজ করা। হিন্দুস্তান টাইমস-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, দীপিকা পাড়ুকোনের নাম তিনি জানতেন। তবে চিনতেন না শাহরুখ খানকে। ছবির সহপরিচালক তাঁকে জানায়, শাহরুখের ছবি পাওয়া মানে এক বড় সুযোগ। আর সেই কারণেই তিনি ছবি করতে রাজি হয়ে গিয়েছিলেন।



মামলাকারী দাবি করেন, এভাবে তো ইন্টারভিউ বোর্ডে ২০১৪ সালে টেট উত্তীর্ণরা আগেই বাদ পড়ে যাবেন। তাই এই সমতা বজায় রাখার মামলাটি হয়।


চাকরি প্রার্থীদের জন্য আগেই ‘মিত্র কমিটি’ গড়ে দিয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের (Calcutta High Court) বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় (Justice Avijit Ganguly)। বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের মন্তব্য, এই কমিটি ইতিহাস তৈরি করবে। সারা দেশের কাছে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। সম্প্রতি চাকরি প্রার্থীদের যোগ্যতা বিচারের ক্ষেত্রে সমতা রাখতে ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক শুভময় মৈত্রের নেতৃত্বে তিন সদস্যর কমিটি গঠন করেছে হাইকোর্ট। নম্বরে সমতা বজায় রাখার একটি মামলা হয়েছিল হাইকোর্টে। মামলাকারীর বক্তব্য ছিল, গত দু’দশকে মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক নম্বরের হার অনেকটাই বেড়েছে। বদল এসেছে পরীক্ষা পদ্ধতিতে। বর্তমানে পাশ করা পড়ুয়াদের সঙ্গে যদি পুরনো পড়ুয়াদের নম্বরের তুলনা করা হয়, সেক্ষেত্রে পুরনোরা অনেকটাই পিছিয়ে পড়বে। এদিকে নিয়োগের পরীক্ষার ক্ষেত্রে অ্যাকাডেমিক স্কোরে মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিকের নম্বর গুরুত্ব পায়। ফলে শতাংশের নিরিখে নবপ্রজন্ম এগিয়ে থাকছে বলেই অভিযোগ ছিল মামলাকারীর। সেই কারণেই এই কমিটি গঠন করে হাইকোর্ট।

মামলাকারীর বক্তব্য, ২০১৪ সালে যিনি টেট পাশ করেছেন, তিনি তার বেশ কিছুটা আগেই মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেছেন। এর মধ্যে সিলেবাসে বদল এসেছে। বদল এসেছে পরীক্ষার মূল্যায়ণ পদ্ধতি, নম্বরের বিন্যাসেও। ফলে ২০২২ সালে যাঁরা টেট দিয়েছেন, তাঁরা নম্বরের ক্ষেত্রে অনেকটাই এগিয়ে থাকছেন। নিয়োগ পরীক্ষায় অ্যাকাডেমিক স্কোরের ক্ষেত্রেও বিস্তর ফারাক থাকছে তাঁদের। ফলে নম্বরের ক্ষেত্রে সমতা থাকছে না বলে মামলা হয়।

মামলাকারী দাবি করেন, এভাবে তো ইন্টারভিউ বোর্ডে ২০১৪ সালে টেট উত্তীর্ণরা আগেই বাদ পড়ে যাবেন। তাই এই সমতা বজায় রাখার মামলাটি হয়। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে এই মামলার শুনানি হয়। তিনি এই কমিটি তৈরি করে দেন। যোগ্যতা বিচার কীভাবে করা যেতে পারে, তা নিয়ে রিপোর্ট দেবে এই কমিটি। সেই কমিটি এদিন প্রাথমিক কাজ শেষ করার জন্য আরও এক মাস সময় চাইল।





রাজ্যপালের হাতেখড়ির অনুষ্ঠান নিয়ে কড়া মন্তব্য করতে শোনা গেল বিজেপির সর্বভারতীয় সহসভাপতি দিলীপ ঘোষকে। বললেন, অনুষ্ঠান করে হাতেখড়ি দেওয়া, এটি একটু বেশি বাড়াবাড়ি হচ্ছে।


রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোসের (CV Ananda Bose) হাতেখড়ি নিয়ে বিতর্ক যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না। সরস্বতী পুজোর বিকেলে রাজ্যপালের হাতেখড়ির জন্য রাজভবনে যে এলাহি আয়োজন করা হয়েছিল, তাতে প্রধান অতিথি ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু বিজেপি শিবিরের কাউকে দেখা যায়নি সেখানে। আমন্ত্রণপত্র পেলেও বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari) সেখানে যাননি। কেন যাচ্ছেন না, সেই কারণও নিজেই জানিয়েছিলেন। টুইটে বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছিলেন, সেখানে যে হাস্যকর পরিস্থিতি তৈরি হবে, তার সাক্ষী তিনি হতে চান না। পরে শুভেন্দু আরও বলেছিলেন, রাজ্যপালকে ভুল বোঝানো হচ্ছে। এবার তাঁর হাতেখড়ির অনুষ্ঠান নিয়ে কড়া মন্তব্য করতে শোনা গেল বিজেপির সর্বভারতীয় সহসভাপতি দিলীপ ঘোষকেও (Dilip Ghosh)। বললেন, অনুষ্ঠান করে হাতেখড়ি দেওয়া, এটি একটু বেশি বাড়াবাড়ি হচ্ছে।



সেখানে বিজেপির নেতাদের গরহাজির থাকা নিয়ে প্রশ্ন করায় আরও সুর চড়ালেন দিলীপবাবু। স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন, কে কোথায় যাবেন, কে কোথায় যাবেন না, সেটি আলাদা বিষয়। কিন্তু এই ধরনের ‘ড্রামা করা রাজ্যপালের শোভা পায় না’ বলেই মনে করছেন তিনি। নিজের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিয়ে বললেন, ‘নতুন ভাষা শেখা উচিত। তাতে সংহতি দৃঢ় হয়। আমাদের দেশে বহু মানুষ বহু ভাষা জানেন। তার জন্য কোনও অনুষ্ঠান করার দরকার হয় না।’ সঙ্গে অবশ্য বিজেপির সর্বভারতীয় সহসভাপতির কথায়, রাজ্যপালের পদে গরিমা যাতে বজায় থাকে, সেই দিকে নজর দেওয়া উচিত। আগামী দিনে যাতে কেউ কোনও প্রশ্ন তুলতে না পারে, রাজ্যপালের ব্যবহার তেমনই হবে বলে আশা করছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার রাতের অন্ধকারে দিদির সুরক্ষাকবচ কর্মসূচির পোস্টার ছেঁড়া হয়েছে। এই ঘটনায় অভিযোগের তির বিজেপির দিকে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার গেরুয়া শিবিরের।

দিদির ‘সুরক্ষা কবচ’ (Didir Surakha Kavach) কর্মসূচির পোস্টার ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ। ঘটনাকে ঘিরে সরগরম কোচবিহারের তুফানগঞ্জ। পঞ্চায়েত ভোটের আগেই রাজনৈতিক উত্তাপ বাড়ছে মহকুমায় । স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার সকালে তুফানগঞ্জের (Tufanganj) কয়েকটি জায়গায় দিদির সুরক্ষাকবচ কর্মসূচির পোস্টার ছেঁড়া অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। তীব্র উত্তেজনা ছড়ায় তুফানগঞ্জে । পোস্টার ছেঁড়া অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে ক্ষোভে ফেটে পড়েন তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। তাঁদের অভিযোগ, যতই এগিয়ে আসছে পঞ্চায়েত নির্বাচন, ততই বিরোধীরা চক্রান্ত করছে। শাসক (TMC) ও বিরোধীদের মধ্যে এই নিয়ে কোন্দল তুঙ্গে। অভিযোগ, বৃহস্পতিবার রাতের অন্ধকারে দিদির সুরক্ষাকবচ কর্মসূচির পোস্টার ছেঁড়া হয়েছে। এই ঘটনায় অভিযোগের তির বিজেপির দিকে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার গেরুয়া শিবিরের।



অপরদিকে বিজেপির অভিযোগ, তাদের দলীয় পতাকা ছিঁড়ে ফেলেছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই। বিজেপির বিরুদ্ধে পাল্টা মিথ্যা অভিযোগ করছে। ঘটনাকে ঘিরে সরগরম তুফানগঞ্জের অন্দরান ফুলবারি-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের তিনটি বুথ। যদিও উভয় দলই তাদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছে। এ বিষয়ে উভয় দল তুফানগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করবে বলে জানা গিয়েছে।

স্থানীয় তৃণমূল নেতা গোবিন্দ রায় বলেন, “জনগণ ওদের একেবারে অপছন্দ করে। পঞ্চায়েত ভোটে ওদের ভালো ফল হবে না। রাতে বিজেপির কর্মীরা মদ-গাঁজা খেয়ে ঘোরাঘুরি করে। ওরাই পোস্টার ছিঁড়েছে। আমরা প্রশাসনকে জানিয়েছে। আর মদের নেশার ঘোরে নিজেরা নিজেদেরও পতাকা ছিঁড়েছে।”


শিয়ালদহ মেন ও সাউথ সেকশনের ও কতগুলি ট্রেন বাতিল। আবার হাওড়া থেকে কর্ড লাইনে চলাচলকারী কয়েকটি ট্রেন বাতিল থাকবে।




দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ভারতীয় রেল। গোটা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা রেলের নেটওয়ার্ক ভরসা করতে হয় বহু মানুষকে। কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণ এবং অপারেশনাল কিছু কাজের জন্য অনেক লাইনে কিছু ট্রেন বাতিল করে রেল। কুয়াশার কারণেও শীতকালে বহু ট্রেন বাতিল হয়। এই ট্রেন বাতিলের জেরে মানুষ যাতে সমস্যা না পড়ে তার জন্য বাতিলের তালিকা জানিয়ে দেন রেল কর্তৃপক্ষ। ২৭ জানুয়ারিও দেশ জুড়ে ২৮৭ লোকাল, প্যাসেঞ্জার এবং এক্সপ্রেস ট্রেন বাতিল করেছে ভারতীয় রেল। এবং ৪৪ ট্রেনের যাত্রাপথের পরিবর্তন এবং ৪০ ট্রেনের গতিপথ ছোট করা হয়েছে। একাধিক রাজ্যের মধ্যে চলাচলকারী ট্রেনও রয়েছে এর মধ্যে। পঞ্জাব, দিল্লি, উত্তর প্রদেশ, ঝাড়খণ্ড, ওড়িশা, অসম, মহারাষ্ট্র, মধ্য প্রদেশ, হিমাচল প্রদেশ, বিহার, তামিলনাড়ুর পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গে চলাচলকারী একাধিক ট্রেন রয়েছে বাতিলের তালিকায়। আসুন দেখে নিই সেই তালিকা। শিয়ালদহ সেকশনের কিছু ট্রেনও থাকবে বাতিল।

২৭ জানুয়ারি ২৮৭ ট্রেন বাতিল করেছে ভারতীয় রেলের। এ রাজ্যের বেশ কয়েকটি সেকশনে চলাচলকারী কয়েকটি ট্রেন ও শুক্রবার বাতিল থাকবে। কোথাও যাওয়ার আগে দেখে নিন, যাতে বেরিয়ে সমস্যায় না পড়তে হয়।

০৩০৮৫ আজিমগঞ্জ জং- নলহাটি জং লোকাল। যা রাত ১০টা ২৫ মিনিটে আজিমগঞ্জ ছেড়ে রাত ১১টা ৪০ মিনিটে নলহাটি পৌঁছনোর কথা। মুর্শিদাবাদ ও বীরভূমের সংযোগকারী ট্রেনটি শুক্রবার বাতিল থাকবে। নলহাটি থেকে আজিমগঞ্জ আসার একটি ট্রেনও বাতিল থাকবে। সকাল ৭টা ৫ মিনিটে আসানসোল ছেড়ে বোকারো স্টিল সিটির যাওয়া ট্রেনটিও বাতিল হয়েছে। শিয়ালদহ- আজমেঢ় এক্সপ্রেসও বাতিল থাকবে।


পালং শাকের মধ্যে প্রয়োজনীয় পুষ্টি রয়েছে। একইভাবে, যখন এই শাক চচ্চড়িতে রাঙা আলু, বেগুন, শিম, কুমড়ো মেশে তখন এটি আরও স্বাস্থ্যকর হয়ে ওঠে।

পালং শাকের মধ্যে প্রয়োজনীয় পুষ্টি রয়েছে। একইভাবে, যখন এই শাক চচ্চড়িতে রাঙা আলু, বেগুন, শিম, কুমড়ো মেশে তখন এটি আরও স্বাস্থ্যকর হয়ে ওঠে। পুষ্টিবিদদের মতে, সবজি সব সময় আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ভাল। অনেকেই হয়তো জানেন না যে, এই একবাটি সবজি খেয়েও আপনি ওজন কমাতে পারেন। পাশাপাশি আপনাকে কোলেস্টেরল, ডায়াবেটিস নিয়েও মাথা খারাপ করতে হবে না। তাহলে চলুন দেরি না করে দেখে নেওয়া যাক পালং শাকের চচ্চড়ি কীভাবে তৈরি করবেন।

পালং শাকের চচ্চড়ি তৈরি করার জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ:

২টো মাঝারি সাইজের আলু, ১টা রাঙা আলু, ১টা বেগুন, ৫-৬টি শিম, ১ আঁটি পালং শাক, ১৫০ গ্রাম কুমড়ো, পরিমাণ মতো সর্ষের তেল, ২টো শুকনো তেল, ১/২ চা চামচ পাঁচফোড়ন, ১/২ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো, ১/২ চা চামচ লঙ্কার গুঁড়ো, ২টো কাঁচালঙ্কা আর স্বাদ অনুযায়ী নুন এবং সামান্য চিনি স্বাদের জন্য।

এর সঞ্চালকের প্রশ্নে যখন উঠে আসে খরাজ মুখোপাধ্যায় অভিনেতার থেকেও বেশি শোনা যায় তিনি কমেডিয়ান। এটা নিয়ে কোনও আক্ষেপ হয় না? 


টলিউড অভিনেতা খরাজ মুখোপাধ্যায় প্রথম থেকেই নিজের কেরিয়ার নিয়ে বেশ আশাবাদী। একটাই বিষয় তাঁকে বারে বারে টানত, তা হল অভিনয়। থিয়েটরের প্রতি তাঁর এক অমোঘ নেশা। যার হাতছানি নিতি কখনই এড়াতে পারেননি। সম্প্রতি সন্দেশ টিভি-তে সোল কানেকশন-এ উপস্থিত হয়ে নিজের অভিনয় প্রীতির কথা উজার করে বললেন খরাজ মুখোপাধ্যায়। তাঁর নিজের অভিনয়ের প্রতি খিদে এতটাই, যে নিজের স্ত্রীর সঙ্গে প্রথম দেখাতেই স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন বাস্তব ছবিটা। বলেছিলেন- আজও আমি থিয়েটর নিয়ে সিরিয়াস। আমি যেদিন প্রথম বেড়িয়েছিলাম প্রতিভাকে নিয়ে সেদিনই জানিয়েছিলাম, তোমার জীবনে একটা সতীন আছেন। এটা মাথায় রাখো।


নানা ওঠা পড়ার মধ্যে দিয়ে কেরিয়ার গেলেও কোথাও গিয়ে যেন খরাজ মুখোপাধ্যায় জানতেন, দিনের শেষে তাঁর মন কী চায়। তাই অভিনয়েই বাঁচেন তিনি। থিয়েটরের মঞ্চ প্রাণ হলেও বড়পর্দা কিংবা ছোট পর্দা থেকেও মুখ ফিরিয়ে থাকেননি তিনি। একের পর এক ভাল ছবি দর্শকদের উপহার দিয়েছেন তিনি।

তবে কেবল অভিনেতা নন, ডাবিং স্টারও বটে খরাজ মুখোপাধ্যায়। একের পর বলিউড থেকে টলিউজের বাঘাবাঘা অভিনেতাদের ডাবিং করেছেন তিনি। অভিনেতার কথায় প্রতিটা অভিনেতাই অনুভূতির বিভিন্ন রহসদ নিয়ে অভিনয় করেন। সেই টিউনিং-কে ম্যাচ করাতে পারলেই ডাবিং খুব সহজ হয়ে যায়।

২০২৩ সালটি মৃণাল সেনের ১০০ বছর পূর্তির। সেই জন্য তাঁকে নিয়ে সিনেমা তৈরি হচ্ছে বাংলায়। কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় তৈরি করছেন 'পালান'। সৃজিত মুখোপাধ্য়ায় তৈরি করছেন মৃণাল সেনের বায়োপিক 'পদাতিক'।

রেগে গিয়েছেন কিংবদন্তি বাঙালি পরিচালক মৃণাল সেনের পুত্র কুণাল সেন। তাঁর নাম করে কিছু ‘দুষ্টু’লোক ফোন নম্বর চাইছে ইনস্টাগ্রামে। তৈরি করেছে মিথ্যা অ্যাকাউন্টও। এই নিয়ে ফেসবুকে সরব হয়েছেন মৃণালপুত্র। তিনি একটি পোস্টের মাধ্যমে সতর্ক করেছেন সক্কলকে।

ফেসবুকে কুণাল লিখেছেন, “কেউ বা কারা আমার নাম করে ইনস্টাগ্রামে মিথ্যে প্রোফাইল তৈরি করেছে। সেই ভুয়ো প্রোফাইলে আমার আসল প্রোফাইল থেকে ছবি নিয়ে পোস্ট করেছে। সেই অ্যাকাউন্টটির নাম kunal___sen (এ ক্ষেত্রে আপনার বাড়তি আন্ডারস্কোরটি লক্ষ্য করুন।) এরপর তারা আমার কনট্যাক্টসদের টেক্সট করছে এবং ফোন নম্বর নেওয়ার চেষ্টাও করছে। এটা একটা ক্লাসিক টেকনিক। আমি আশা করছি, আপনারা অনেকেই ফোন নম্বর দেননি। এটা একটা সাংঘাতিক সমস্যা। কিছু বিষয়ে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।”

কুণালের এই পোস্টের পরে অনেক শুভাকাঙ্ক্ষীই তাঁকে সুপরামর্শ দিয়েছেন ফেসবুকে। কেউ-কেউ তাঁকে ফেসবুকের পাসওয়ার্ড পর্যন্ত বদলানোর পরামর্শ দিয়েছেন। কুণাল জানিয়েছেন, তাঁর প্রোফাইল হ্যাক হয়নি। অনেকে তাঁকে আইনের সাহায্যও নিতে বলেছেন। কেউ-কেউ জানিয়েছেন, তাঁরা সেই ভুয়ো প্রোফাইলটিকে ব্লক করেছেন।

২০২৩ সালটি মৃণাল সেনের ১০০ বছর পূর্তির। সেই জন্য তাঁকে নিয়ে সিনেমা তৈরি হচ্ছে বাংলায়। কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় তৈরি করছেন ‘পালান’। সৃজিত মুখোপাধ্য়ায় তৈরি করছেন মৃণাল সেনের বায়োপিক ‘পদাতিক’। পুত্র কুণাল থাকেন শিকাগোতে। সেখানেই তৈরি হয়েছে মৃণাল সেনের আর্কাইভ।

বর্তী Updated on: Jan 27, 2023 | 11:38 AM
Shyampur Molestation Case: ঘটনায় মূল তিন অভিযুক্তকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তিন জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল নিগৃহীতার। ধৃত তিন জনের মধ্যে ২ জনের বিরুদ্ধে এফআইআর ছিল বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে।



শ্যামপুরকাণ্ডে ঘটনার পুনর্নির্মাণ করল পুলিশ। তিন অভিযুক্তকে নিয়ে ঘটনার পুনর্নির্মাণ করা হয়েছে। শ্যামপুর থানার পুলিশ, উলুবেড়িয়ার এসডিপিও, হাওড়ার গ্রামীণ জেলার এসপির যৌথ উদ্যোগে করা হয়। ছিলেন হাওড়ার গ্রামীণ জেলার অ্যাডিশন্যাল এসপি ইন্দ্রজিৎ সরকারও। ঘটনায় মূল তিন অভিযুক্তকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তিন জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল নিগৃহীতার। ধৃত তিন জনের মধ্যে ২ জনের বিরুদ্ধে এফআইআর ছিল বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে। বৃহস্পতিবারই নিগৃহীতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন রাজ্যের শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারপার্সন সুদেষ্ণা রায়। ছিলেন আরও দু’জন প্রতিনিধি। নিগৃহীতার পরিবারের সঙ্গে কথা বলেন তাঁরা। নিগৃহীতা ছাত্রী তাঁদের জানায়, ধৃত তিন দুষ্কৃতী এলাকায় এর আগেও অনেক মেয়েদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছে। তাঁদের কাছে ঘটনার রাতের বিবরণ দেন নিগৃহীতা। সুদেষ্ণা রায় বলেন, “পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছি। আমরা পাশে থাকব। এই পরিবারের দুটি মেয়ে। এই দুজনকেই কন্যাশ্রী দেওয়া হবে। এর সঙ্গে আরও কীভাবে পাশে থাকা যায়, তার চেষ্টা করব। তিন জনকে গ্রেফতার করেছে, তাদের যেন কঠোরতম শাস্তি হয়। পুলিশ বেআইনি মদের ঠেক গুলো যাতে তুলে দেয়, তার জন্য পুলিশের সঙ্গে কথা বলব।”


এদিকে, ঘটনাকে ঘিরে সরব রাজ্য রাজনীতি। বিজেপির (BJP) কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে নতুন করে বুধবারও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে শ্যামপুর। বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে শ্যামপুর থানায় যান গ্রামবাসীরাও। পুলিশ-প্রশাসনের বিরুদ্ধে লাগাতার স্লোগান দিতে থাকেন তাঁরা। থানার ব্যারিকেড ভেঙে ঢোকার চেষ্টা করেন বিক্ষোভকারীরা। গোটা বিষয় নিয়ে এখনও তপ্ত শ্যামপুর।


আলফা, কেএলও এনডিএফবি এবং কেএলও দমনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন তিনি। পুলিশ মহলে এই সবের জন্য তাঁর যথেষ্ট সুখ্যাতি রয়েছে।

অফুরান উদ্যম, সাহসিকতা ও ভাল কাজের জন্য এবার পুরস্কার পাচ্ছেন আলিপুরদুয়ারের কুমারগ্রাম থানার আইসি বাসুদেব সরকার। শৌর্য পদকের পর এবার ইন্ডিয়ান পুলিশ মেডেল (আইপিএম) পাচ্ছেন তিনি। উত্তরবঙ্গের একটি বিস্তীর্ণ অঞ্চল যখন কেএলও (KLO) আন্দোলনে জেরবার রাজ্য সরকার, সেই সময় আলিপুরদুয়ারের (Alipurduar) কুমারগ্রাম থানার দায়িত্ব পান বাসুদেব সরকার। আর দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই একের পর এক সাফল্য। আলফা, কেএলও এনডিএফবি এবং কেএলও দমনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন তিনি। পুলিশ মহলে এই সবের জন্য তাঁর যথেষ্ট সুখ্যাতি রয়েছে। সেই বাসুদেব সরকার এবার জাতীয় স্তরের পুরস্কার পাওয়ায় খুশির হাওয়া আলিপুরদুয়ার পুলিশ প্রশাসনেও।



কেএলও আন্দোলনের কালো মেঘে যখন ঢেকে গিয়েছিল উত্তরের আকাশ, ঠিক সেই সময়ে ধুমকেতুর মত আবির্ভাব ঘটে পুলিশ অফিসার বাসুদেব সরকার। পুলিশ মহলে ‘বিডি’ বলেই সুপরিচিত তিনি। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত কেএলও আন্দোলন চরমে পৌঁছে গিয়েছিল উত্তরবঙ্গে। লাগামহীন সন্ত্রাস। সেই সময়েই দায়িত্বে আসেন বাসুদেব সরকার। কেএলও-দের নিয়ন্ত্রণে আনতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন তিনি। ২০০১ সাল থেকে উত্তরবঙ্গের একাধিক থানায় ডিউটি সামলানোর অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁর। মাটিগারা, কুমারগ্রাম, জয়গাঁ, গোয়ালপোখর, শামুকতলা, বাগডোগরা, এনজিপি, মালবাজার থানার ওসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। কোনও কোনও থানায় দুইবারও পোস্টিং পেয়েছেন তিনি। ২০১৬ সালে পদোন্নতি হয়ে আইসি হিসেবে পূর্ব বর্ধমানের কেতুগ্রামের দায়িত্ব পালন করেন। পরে আবার সিতাই এবং কুমারগ্রাম থানার আইসি হিসেবে দায়িত্ব নেন তিনি।

কলকাতা, শিলিগুড়ির পর বাংলার আরও দুই শহরে চালু হয়ে গেল Reliance Jio True 5G। সেই শহর দুটিই পশ্চিম বর্ধমানের— আসানসোল ও দুর্গাপুর।

কলকাতা, শিলিগুড়ির পর বাংলার আরও দুই শহরে চালু হয়ে গেল Reliance Jio True 5G। সেই শহর দুটিই পশ্চিম বর্ধমানের— আসানসোল ও দুর্গাপুর। এদিন দেশের মোট 50টি শহরে মুম্বইয়ের টেলিকম জায়ান্টটি তাদের দ্রুত গতির 5G পরিষেবা লঞ্চ করল। সব মিলিয়ে এখন দেশের মোট 184টি শহর Jio 5G পরিষেবা পেয়ে গেল, যার মধ্যে চারটিই বাংলার।

Reliance Jio হল দেশের প্রথম এবং একমাত্র অপারেটর, যারা দেশের বেশিরভাগ ক্ষেত্রে 5G পরিষেবা চালু করেছে। এই সব শহরের Jio গ্রাহকদের Jio Welcome Offer ব্যবহারের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হবে। এই 50 শহরের Jio ব্যবহারকারীরা মঙ্গলবার, 24 জানুয়ারি থেকে কোনও অতিরিক্ত খরচ ছাড়াই 1 Gbps+ গতিতে সীমাহীন ডেটার অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করতে পারবেন।

এদিনে 50 শহরে Jio 5G চালু করে কোম্পানির এক মুখপাত্র দাবি করেছেন, 17টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলজুড়ে 50টি অতিরিক্ত শহরে Jio True 5G পরিষেবা লঞ্চ করতে পেরে আমরা রোমাঞ্চিত। এই নিয়ে এখন দেশের 184 শহরে জিও 5G চালু হয়ে গেল। এখনও পর্যন্ত 5G পরিষেবার বৃহত্তম রোলআউটগুলির মধ্যে একটি হল এদিনের এই 50 শহরে Jio-র 5G পরিষেবার সম্প্রসারণ। শুধু ভারত নয়। বিশ্বের কোনও জায়গাতেই এমন বৃহত্তম নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ এর আগে হয়নি।”

Jio-র ওই মুখপাত্র আরও যোগ করে বললেন, “সারা দেশে ট্রু 5জি রোলআউটের গতি এবং তীব্রতা বাড়িয়েছি। কারণ, আমরা চাই প্রতিটি ব্যবহারকারী Jio True 5G প্রযুক্তির ট্রান্সফর্মেশনাল সুবিধা উপভোগ করুন। 2023 সালে ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই দেশের প্রতিটা প্রান্তের মানুষ Jio True 5G-র দ্রুততর ইন্টারনেট দ্বারা উপকৃত হতে পারবেন।”

স্প্যানিশ ক্লাবের হয়ে প্রচুর সাফল্য পেয়েছেন। সাফল্য দিয়েছেন ক্লাবকেও। কিন্তু বার্সা ছেড়ে সেই মেসিকেই (Lionel Messi) চলে যেতে হয়েছিল প্যারিস সাঁজাতে।

বার্সেলোনার যুব দল থেকেই উত্থান হয়েছিল তাঁর। সিনিয়র টিমে পা দেওয়ার পর দ্রুত সাফল্যের শিখরে উঠে পড়েছিলেন। ধীরে ধীরে বিশ্বের সেরা ফুটবলারের তালিকাতেও ঢুকে পড়েছিলেন লিওনেল মেসি। স্প্যানিশ ক্লাবের হয়ে প্রচুর সাফল্য পেয়েছেন। সাফল্য দিয়েছেন ক্লাবকেও। কিন্তু বার্সা ছেড়ে সেই মেসিকেই (Lionel Messi) চলে যেতে হয়েছিল প্যারিস সাঁজাতে। সেও ছিল এক নায়কীয় পরিস্থিতি। বার্সা ছাড়ার আগে শেষ যে সাংবাদিক সম্মেলন করেছিলেন, তাতে কেঁদে ফেলেছিলেন এলএম টেন। পিএসজির সঙ্গে চুক্তি শেষ হয়ে আসছে আর্জেন্টেনিয়ানের। ট্রান্সফার মার্কেটে গুঞ্জন, মেসি ফিরতে পারেন বার্সেলোনায় (Barcelona)। তা কি সম্ভব? কী বলছে মেসির ঘনিষ্ঠমহল? তুলে ধরল 


বার্সেলোনার হয়ে এক যুগেরও বেশি সময় ধরে খেলেছেন মেসি। স্প্যানিশ ক্লাব তো বটেই, বিশ্বের ক্লাব ফুটবলেও তিনি অন্যতম সফল ফুটবলার। ৭৭৮টা ম্যাচ খেলেছেন বার্সার হয়ে। করেছেন ৬৭২টা গোল। সঙ্গে ৩০৩টা গোল করিয়েছেন সতীর্থদের দিয়ে। সেই মেসি তার পরও খুশি নন তাঁর পুরনো ক্লাব নিয়ে। এই দু’বছরে পরিস্থিতি পাল্টে গিয়েছে অনেকটাই। বার্সা যেমন নতুন প্রজন্মকে সামনে রেখে এগিয়ে যেতে শুরু করেছে। তেমনই মেসিও বিশ্ব ফুটবলে নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রতিষ্ঠা করে ফেলেছেন। কাতার বিশ্বকাপ জিতে সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলারের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন। সেই সঙ্গে মেসিও এসে গিয়েছেন তাঁর ফুটবল জীবনের প্রান্তিক স্টেশনে। এই পরিস্থিতিতে মেসি যে আর নতুন করে ফিরে যেতে চাইছেন না বার্সায়া, তা খানিকটা হলেও স্পষ্ট।

মেসির এক ঘনিষ্ঠ সাংবাদিক গাটসন এদুল দাবি করেছেন, পিএসজি যদি ছাড়তেও হয়, তা হলেও বার্সেলোনায় ফিরবেন না মেসি। তার অন্যতম কারণই হল, স্প্যানিশ ক্লাবের বোর্ড কর্তাদের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক অত্যন্ত খারাপ হয়ে গিয়েছে। গাটসনের কথায়, ‘এই মুহূর্তে মেসির সঙ্গে বার্সার বোর্ডের সম্পর্ক তলানিতে ঠেকেছে। মেসি ওর পুরনো ক্লাব বার্সেলোনাকে আজও একই রকম ভালোবাসে। কিন্তু পরিস্থিতি আর আগের মতো নেই। কর্তাদের সঙ্গে সম্পর্কও বেশ জটিল হয়ে গিয়েছে। তার কারণই হল, বার্সা আর ওর মধ্যে শেষটা ভালো ছিল না।’