WEATHER

Top News


যখন হৃৎপিণ্ড সঠিক ভাবে পাম্প করতে পারে না তখন গোড়ালি, পায়ে ফোলাভাব দেখা দেয়। এর মূল কারণ হল গোড়ালি, পা, উরু এবং পেটে তরল জমা হওয়া


বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর অন্যতম প্রধান বড় কারণ হল হৃদরোগ। আনুমানিক বছরে প্রায় ১ কোটি ৮০ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয় এই হৃদরোগে। বিশ্বজুড়ে ২৯ সেপ্টেম্বর দিনটি পালন করা হয় বিশ্ব হার্ট দিবস হিসেবে। ওয়ার্ল্ড হার্ট ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে প্রথম এই দিনটি পালনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। বিশ্বজুড়ে বেড়ে চলা হৃদরোগ, স্ট্রোক এবং হার্ট অ্যার্টাক এড়াতেই এই দিনটি পালনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর প্রধান কারণ হল হৃদরোগ। হৃদরোগের মধ্যে রয়েছে সিভিডি, করোনারি হার্ট ডিজিজ, সেরিব্রোভাসকুলার ডিজিজ, রিউম্যাটিক হার্ট ডিজিজ এবং অন্যান্য সমস্যা।

মুম্বাইয়ের স্যার এইচএন রিলায়েন্স ফাউন্ডেশন হাসপাতাল ও গবেষণা কেন্দ্রের কনসালটেন্ট কার্ডিয়াক সার্জন ডাঃ বিপিনচন্দ্র ভামরের মতে, হৃদরোগে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে। এর প্রধান কারণ মানুষের মধ্যে হৃদরোগ সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্যের অভাব।

হার্ট ফেলিওরের লক্ষণগুলো কী কী? হার্টের স্বাস্থ্যের অবনতি হলে শরীরে কিছু উপসর্গ দেখা দেয়। এই লক্ষণগুলি সম্পর্কে অধিকাংশই সচেতন নন। অনেক সময়ই তা এড়িয়ে যান। হার্টের পেশী যখন ক্ষতিগ্রস্ত হয় তখন হার্টের পাম্প করার ক্ষমতা কমে যায়। আবার অনেক সময় জেনেটিক কারণেও হার্টের ভালভের গঠনগত ত্রুটি থেকে যায়। হার্ট ঠিকমতো কাজ করতে না পারলে শরীরে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত পৌঁছয় না। ফলে রোজকার কাজের উপর তার প্রভাব পড়ে।

হার্ট ফেলিওর হতে পারে যে সব লক্ষণে বুঝবেন-

১.শরীরে যদি অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত না পৌঁছয় তাহলে সেখান থেকে ক্লান্তি আসাটা খুবই স্বাভাবিক। আর তাই প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত ক্লান্ত হয়ে পড়লে আগে থেকেই সচেতন হন এবং চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

২.হার্টের সমস্যা থাকলে একটু পরিশ্রমেই শরীর হাঁপিয়ে পড়ে। শ্বাস নিতে সমস্যা হয়। ফলে শরীর ক্লান্ত হয়ে পড়ে এবং কোনও কাজেই মনোনিবেশ করা যায় না। কাশি, শ্বাসকষ্ট কিন্তু হার্ট ফেলিওয়ের অন্যতম কারণ।

৩.যখন হৃৎপিণ্ড সঠিক ভাবে পাম্প করতে পারে না তখন গোড়ালি, পায়ে ফোলাভাব দেখা দেয়। এর মূল কারণ হল গোড়ালি, পা, উরু এবং পেটে তরল জমা হওয়া। ফলে শরীরে জলের ওজন বেড়ে যায়।

৪.খিদে কমে যাওয়া, প্রায়শই বমি ভাব, খেলেই বমি হয়ে যাওয়া, হজম না হওয়া এসব হল হৃদরোগের উপসর্গ। পরিপাকতন্ত্রে প্রয়োজনীয় রক্ত না গেলেই এই সমস্যা বেশি হয়। এছাড়াও হঠাৎ করে যদি কয়েকদিন দেখেন যে হৃদস্পন্দন বেড়ে যাচ্ছে তাহলেও সাবধানে থাকবেন। চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে ভুলবেন না।


তাঁর নেতৃত্বে তিন ম্যাচের ওডিআই সিরিজে ইংল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশ করেছে ভারত। নেতৃত্বের পাশাপাশি ব্যাট হাতেও অনবদ্য পারফরম্যান্স হরমনপ্রীত কৌরের। তার সুফল পেলেন তিনি

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুরন্ত পারফরম্যান্সে ভর করে আইসিসি ক্রমতালিকায় তরতরিয়ে উঠলেন ভারতের মহিলা ক্রিকেট দলের (Indian Women’s Cricket Team) ক্যাপ্টেন হরমনপ্রীত কৌর (Harmanpreet Kaur)। ওডিআই ব্যাটারদের ব়্যাঙ্কিংয়ে চার ধাপ এগিয়ে বর্তমানে হরমনপ্রীতের ঠাঁই পঞ্চম স্থানে। ইংল্যান্ড সফরে একঝাঁক তরুণ খেলোয়াড়দের নিয়ে ইতিহাস গড়েছেন হরমনপ্রীত। ইংরেজদের তাদেরই মাটিতে ৩-০ ব্যবধানে ক্লিন সুইপ করে উইমেন ইন ব্লু। ক্যান্টারবেরিতে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ১১১ বলে ১৪৩ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলেন কৌর। হরমন ছাড়াও ওপেনার স্মৃতি মান্ধানা এবং শেষ ম্যাচে রান আউটের পদ্ধতি নিয়ে শিরোনামে থাকা দীপ্তি শর্মারও আইসিসি ক্রমতালিকায় (ICC ODI rankings) উন্নতি হয়েছে। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সদ্য সমাপ্ত সিরিজ ছাড়াও ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে পারফরম্যান্সের নিরিখে এই উন্নতি।



প্রাক্তন ১ নম্বর ব্যাটার মান্ধানার শেষ দুটি ম্যাচে স্কোর ৪০ এবং ৫০। একধাপ উপরে উঠে এসে বর্তমানে ব্যাটারদের তালিকায় ষষ্ঠ স্থানে উঠে এসেছেন। লর্ডসে তৃতীয় ম্যাচে দীপ্তি অপরাজিত ৬৮ রানের ইনিংস খেলে আট ধাপ উপরে উঠে এসেছেন। বর্তমানে তাঁর স্থান ২৪। পূজা বস্ত্রকার এবং হারলিন দেওলও ব়্যাঙ্কিংয়ে এগিয়েছেন। বোলারদের মধ্যে উন্নতি হয়েছে রেণুকা সিংয়ের। ৩৫ ধাপ এগিয়ে বর্তমানে বোলারদের তালিকায় ৩৫ স্থানে রয়েছেন। শেষ দুটি ম্যাচে চারটি উইকেট নেন রেণুকা। পঞ্চম স্থানে থেকে ঝুলন গোস্বামী আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছেন।
ঝুলন গোস্বামীর বিদায়ী সিরিজকে স্মরণীয় করে রাখতে কোনও কসুর রাখেননি ভারতীয় দলের সদস্যরা। সকলেই নিজেদের সেরা পারফরম্যান্স উজাড় করে দিয়েছেন। বিদেশে বড় স্কোর হাঁকানোর জন্য খ্যাত হরমনপ্রীত কৌর। ২০১৭ সালে ওডিআই বিশ্বকাপে ১৭১ রানের ইনিংস খেলে চমকে দিয়েছিলেন। হরমনপ্রীতের ব্যাটে বিশ্বকাপ ফাইনালে জায়গা করে নেয় উইমেন ইন ব্লু। সেই স্মৃতি এখনও তরতাজা। বছর পাঁচেক পর ইংল্যান্ডের মাটিতে ক্যাপ্টেন হ্যারির ব্যাট ফের চওড়া হল। তার প্রতিফলন ঘটেছে ব়্যাঙ্কিংয়ে

দুর্নীতির আঁচ পড়েছে উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়েও। বাগ কমিটির রিপোর্টে উপাচার্য সুবীরেশ ভট্টাচার্যের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠে আসে।

বদল যে হতে পারে সেই সম্ভাবনার কথা আগেই শোনা গিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত জল্পনাই সত্যি হল। উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের (University of North Bengal) অন্তবর্তীকালীন উপাচার্য হচ্ছেন ওম প্রকাশ মিশ্র। প্রসঙ্গত, শিক্ষাক্ষেত্রে দুর্নীতির অভিযোগে বর্তমানে জেল বন্দি রয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee) সহ একাধিক সরকারি আমলা। দুর্নীতির আঁচ পড়েছে উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়েও। বাগ কমিটির রিপোর্টে উপাচার্য সুবীরেশ ভট্টাচার্যের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠে আসে। যা নিয়েও বিস্তর চাপানউতর চলছিল শিক্ষা মহলে। তারপর থেকেই শোনা যায় তাঁর বদলির জল্পনা। সূত্রের খবরস, এরইমধ্যে দ্রুত কী করে উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন উপাচার্য আনা যাবে সে বিষয়ে ভাবনা চিন্তাও শুরু করেছিল সরকার।


অস্থায়ীভাবে অ্যাড হক কমিটির ভিত্তিতে কাউকে নিয়োগ করা হতে পারে বলেও শোনা গিয়েছিল। তবে ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবীণ অধ্যাপকরা অগ্রাধিকার পেতে পারেন বলেও খবর মেলেছিল শিক্ষা দফতর সূত্রে। শেষ পর্যন্ত শোনা গেল ওম প্রকাশ মিশ্রর নাম। ১৯৮৭ সাল থেকে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন ওম প্রকাশ। ১৯৯৪ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্বে ছিলেন। তারপর ২০১৮ সালে তিনি ফের বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব নেন। 

বর্তমানে যে বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্ব নিতে চলেছেন সেই উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই ১৯৮২ সালে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক পাশ করেছিলেন ওমপ্রকাশ। পেয়েছিলেন গোল্ড মেডেলও। এরপর চলে যান জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে। ফার্স্ট ক্লাস পান স্নাতকোত্তরেও ও এমফিলে। পরবর্তীতে পিএইচডি শেষ করেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। যদিও নতুন দায়িত্ব পাওয়া প্রসঙ্গে ওমপ্রকাশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “এখনও নিয়োগপত্র হাতে পাইনি। পাওয়ার পর এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া দেব।”

বুধবার অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল অনিল চৌহান কে ভারতের পরবর্তী চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ বা সিডিএস পদে নিযুক্ত করা হল।


বুধবার অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল অনিল চৌহান কে ভারতের পরবর্তী চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ বা সিডিএস পদে নিযুক্ত করা হল। জেনারেল বিপিন রাওয়াতের মৃত্যুর ৯ মাস পর নতুন চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ পেল ভারত। বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) এই সিদ্ধান্ত নিয়ে কেন্দ্র জানিয়েছে, ‘দায়িত্ব গ্রহণের তারিখ থেকে এবং পরবর্তী আদেশ না আসা পর্যন্ত’ ভারত সরকারের সামরিক বিষয়ক বিভাগের সচিবের দায়িত্বও সামলাবেন তিনি।


১৯৬১ সালের ১৮ মে জন্মেছিলেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল অনিল চৌহান। জাতীয় প্রতিরক্ষা অ্যাকাডেমি এবং ভারতীয় সামরিক অ্যাকাডেমি থেকে শিক্ষা গ্রহণের পর ১৯৮১ সালে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ১১ নম্বর গোর্খা রাইফেলে নিুযুক্ত হয়েছিলেন তিনি। মেজর জেনারেল হিসেবে নর্থ কমান্ডের গুরুত্বপূর্ণ বারামুলা সেক্টরে এক পদাতিক বাহিনীকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তিনি। পরবর্তীকালে লেফটেন্যান্ট জেনারেল হিসেবে, তিনি উত্তর পূর্বে ভারতে এক বাহিনী কমান্ড করেন। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে ইস্টার্ন কমান্ডের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং-ইন-চিফ হয়েছিলেন। ২০২১ সালের মে মাসে এই পদে থেকেই তিনি পরিষেবা থেকে অবসর নিয়েছিলেন। একসময়, তিনি অ্যাঙ্গোলায় রাষ্ট্রসংঘের অভিযানেও দায়িত্ব পালন করেছিলেন

খবরটি সদ্য এসে পৌঁছেছে। বিস্তারিত বিবরণ আসছে কিছুক্ষণের মধ্যেই। আপনার কাছে দ্রুততার সঙ্গে খবর পৌঁছে দেওয়াই আমাদের প্রয়াস। তাই সব খবরের লেটেস্ট আপডেট পেতে এই পেজটি রিফ্রেশ করতে থাকুন। পাশাপাশি অন্যান্য খবরের জন্য 

বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, "যাঁরা বেআইনি নিয়োগ পেয়েছেন তাঁদের কাছে আদালতের আবেদন, দুর্নীতি করে যাঁরা চাকরি পেয়েছেন, তাঁরা সবাই জানেন। হয়ত টাকা বা অন্য কিছু দিয়ে চাকরি পেয়েছেন। ৯ নভেম্বরের মধ্যে তাঁরা পদত্যাগ করবেন।"

দুর্নীতি করে যাঁরা চাকরি পেয়েছেন, তাঁদের উদ্দেশে এবার এক আবেদন করলেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। যাঁরা টাকা দিয়ে, বা অন্য কিছুর বিনিময়ে চাকরি পেয়েছেন, তাঁদের নিজে থেকে চাকরি ছাড়ার জন্য আবেদন করলেন বিচারপতি। সঙ্গে এও জানালেন, যাঁরা নিজে থেকে চাকরি ছাড়বেন, তাঁদের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করা হবে না। অন্যথায় কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি। বুধবার মামলার শুনানির সময় বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, “যাঁরা বেআইনি নিয়োগ পেয়েছেন তাঁদের কাছে আদালতের আবেদন, দুর্নীতি করে যাঁরা চাকরি পেয়েছেন, তাঁরা সবাই জানেন। হয়ত টাকা বা অন্য কিছু দিয়ে চাকরি পেয়েছেন। ৯ নভেম্বরের মধ্যে তাঁরা পদত্যাগ করবেন।”



সেই সঙ্গে তাঁর আরও সংযোজন, “এসএসসিতে তাঁরা (যাঁরা বেআইনিভাবে চাকরি পেয়েছেন) চিঠি পাঠাবেন ৭ নভেম্বরের মধ্যে। স্কুল সার্ভিস কমিশন তাদের ওয়েবসাইটে এটি বিজ্ঞপ্তি আকারে জারি করবে। এদের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করা হবে না। তাঁদের পদ শূন্যপদ হিসেবে দেখা হবে। যদি না পদত্যাগ করেন, তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সরকারি চাকরি আগামী কয়েক বছর পাবেন না।”

উল্লেখ্য, এদিন সিবিআই-এর তরফে যে রিপোর্ট জমা দেওয়া হয়েছে, তাত দেখে বিস্মিত বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। দেখা গিয়েছে, সাদা খাতাতেও চাকরি পেয়েছেন। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় এদিন তাঁর নির্দেশে জানিয়েছেন, এসএলএসটি আরএসএলটি নাম, রোল নম্বর দেখে সিবিআই জানাবে, কারা আদৌ রিকমেন্ডেশন পেয়েছেন। বোর্ড অক্টোবর তৃতীয় সপ্তাহে কমিশনের সঙ্গে একটি বৈঠক করবে। কারা শূন্য পেয়েও চাকরি পেয়েছেন, সেই বিষয়টিও ওই বৈঠকে দেখা হবে।

এর পাশাপাশি সিবিআই-এর ভূমিকারও বেশ প্রশংসা করেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি জানিয়েছেন, “এই তদন্তে নিঃশব্দে খুব ভাল কাজ করেছে সিবিআই৷ মাস্টারমাইন্ডকে খুঁজে বের করতে বলব। সমাজের জন্য এই কাজ তারা করবে।” আগামী ১৬ নভেম্বর এই সংক্রান্ত মামলার পরবর্তী শুনানি রয়েছে

পুলিশ সূত্রে খবর, দিন চারেক আগে খেজুরি বীরবন্দ কাছে খালের কাছে পচাগলা এক মহিলার দেহ উদ্ধার করে পুলিশ

মাকে খুন করে প্রমাণ লোপাটের জন্য নদীতে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ উঠল ছেলে ও বৌমার বিরুদ্ধে। জন্মদাত্রী মায়ের দেহ জলে ফেলেও শেষ রক্ষা হয়নি। তদন্ত শুরুর পর অভিযুক্ত ছেলে ও বৌমাকে গ্রেফতার করেছে কাঁথি থানার পুলিশ। বুধবার অভিযুক্তদের কাঁথি মহকুমা আদালতে তোলা হয়। বিচারক তাঁদের জামিন নাকচ করে ১০ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন। অভিযুক্তদের হেফাজতে নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। মাকে খুন অভিযুক্ত ছেলে রতন সিং ও তাঁর স্ত্রী অনিতা সিং। ওই দম্পতির বাড়ি কাঁথি দেশপ্রাণ ব্লকের দক্ষিণ আড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা।


পুলিশ সূত্রে খবর, দিন চারেক আগে খেজুরি বীরবন্দ কাছে খালের কাছে পচাগলা এক মহিলার দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এর পর দেহটি ময়নাতদন্তের জন্য কাঁথি মহাকুমা হাসপাতালে পাঠানো হয়। মৃতের পরিচয় জানতেন করতে তদন্ত শুরু করে পুলিশ। জানা যায়, মৃত মহিলা কল্পনা সিং ( ৪৮)। তাঁর বাড়ি কাঁথি থানার দক্ষিণ আড়িয়া গ্রামে। এর পর একটি মামলার রুজু করে তদন্ত শুরু করে। ওই মহিলাকে খুন করা হয়েছে বলে এমনটাই পুলিশি তদন্তে উঠে আসে। মৃত মহিলার বাপের বাড়ির লোকেরা কাঁথি থানার লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। কাঁথির সফিয়াবাদ গ্রামের মৃত কল্পনার বাবা মন্টু ওঝা লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ পেয়ে পুলিশ তদন্তে নেমে জানতে পারে, ওই মহিলাকে খুন করে প্রমাণ লোপাট জন্য বস্তাবন্দি করে রসুলপুর নদীতে ফেলে ফেলে দেওয়া হয়েছিল। সেই খুনের ঘটনার যুক্ত খোদ ছেলে ও বৌমা। দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে উঠে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। পারিবারিক অশান্তির জেরে মাকে খুন করে ছেলে ও বৌমা। এর পর প্রমাণ লোপাট জন্য রসুলপুর নদীতে ভাসিয়ে দেয়। দেহটি ভাসতে ভাসতে খেজুরি বীরবন্দ এলাকায় উঠে। খেজুরি থানার পুলিশ দেহটি উদ্ধার করে।

ঘটনা নিয়ে কাঁথি মহকুমা পুলিশ আধিকারিক সোমনাথ সাহা বলেছেন, “ঘটনা তদন্তে নেমে ছেলে ও বৌমাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযুক্তকে জিজ্ঞাসা আমাদের জন্য হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। পুরো ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।” যদিও তদন্তের কারণে বেশি কিছু তথ্য জানাতে রাজি হননি 

কাঁথি যুব তৃণমূলের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে সুপ্রকাশ গিরি নিজের ফেসবুক পেজে ধন্যবাদ জানান তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও ‘প্রাণপ্রিয়’ নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

কাঁথি: অধিকারী পরিবারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সুপ্রকাশ গিরির উপর আস্থা রাখলেন তৃনমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব। পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি সাংগঠনিক জেলা তৃণমূল যুব তৃণমূলের সভাপতি দায়িত্ব পেলেন তৃণমূল নেতা সুপ্রকাশ গিরি। বুধবার বিকেলে রাজ্য তৃণমূল ভবন থেকে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা কাঁথি সাংগঠনিক যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি পদে আবারও মনোনীত হলেন সুপ্রকাশ গিরি। এ নিয়ে টানা ৫ বছর কাঁথি সাংগঠনিক যুব তৃণমূলের সভাপতি নির্বাচিত হলেন সুপ্রকাশ। তিনি পুনরায় যুব সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর আনন্দে আত্মহারা কর্মী সমর্থকরা।

সুপ্রকাশ গিরি নিজেকে শুধু কাঁথি সাংগঠনিক জেলাতেই আটকে রাখেননি। গত বছর ত্রিপুরায় পুর নির্বাচনে যুব তৃণমূলের হয়ে প্রচারে গিয়েছিলেন। ত্রিপুরা রাজ্যে আমবশা আসনে তৃণমূল কংগ্রেস জয়লাভ করে। সেখানে যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সুপ্রকাশ গিরি পর্যবেক্ষক হিসাবে দায়িত্ব সামিলেছেন। আর সেখানেই একটি মাত্র আসনে জয় পেয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস। আবারও বিভিন্ন জেলার পর্যবেক্ষকের দ্বায়িত্ব সামিলেছেন। সাংগঠনিক দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন এমনটাই মত রাজনৈতিক মহলে। তার পর থেকে কাঁথি পুরসভার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। কাঁথি পুরসভা উপ পুরপ্রধান দায়িত্বপান তিনি ।

কাঁথি যুব তৃণমূলের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে সুপ্রকাশ গিরি নিজের ফেসবুক পেজে ধন্যবাদ জানান তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও ‘প্রাণপ্রিয়’ নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে।


স্পেনের কাছে হেরে কাঁদতে কাঁদতে মাঠ ছেড়েছেন পর্তুগিজ সুপারস্টার। বিশ্বকাপ শুরুর কয়েক সপ্তাহ আগে রোনাল্ডোকে নিয়ে রীতিমতো কাঁটাছেড়া শুরু হয়ে গিয়েছে। তাঁর পারফরম্যান্সের দিকে আঙুল তুলছেন অনেকেই।


ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর (Cristiano Ronaldo) সময়টা ভালো কাটছে না। বিশ্বকাপের (Football World Cup) আগে নেশনস লিগে স্পেনের কাছে হেরে গিয়ে ছিটকে গিয়েছে সিআর সেভেনের পর্তুগাল (Portugal)। দিন কয়েক আগে নেশনস লিগের ম্যাচে চেক প্রজাতন্ত্রের গোলকিপার টমাস ভ্যাক্লিকের কনুইয়ে আঘাত লেগেছিল রোনাল্ডোর। যার ফলে নাক দিয়ে গলগল করে রক্ত বেরোতে থাকে সিআর সেভেনের। কিছুক্ষণের জন্য মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যেতে হয় পর্তুগালের অধিনায়ককে। এরপর নাকে ব্যান্ডেড বেঁধে ফের ফিরে আসেন মাঠে। নিজে গোল না করলেও সেই ম্যাচে চারটি অ্যাসিস্ট করেছিলেন। এরপর স্পেনের বিরুদ্ধে ড্র করলেই সেমিফাইনাল নিশ্চিত হয়ে যেত পর্তুগালের। কিন্তু সেই সুখটা পেলেন না রোনাল্ডোরা। উল্টে স্পেনের কাছে হেরে কাঁদতে কাঁদতে মাঠ ছেড়েছেন পর্তুগিজ সুপারস্টার। বিশ্বকাপ শুরুর কয়েক সপ্তাহ আগে রোনাল্ডোকে নিয়ে রীতিমতো কাঁটাছেড়া শুরু হয়ে গিয়েছে। তাঁর পারফরম্যান্সের দিকে আঙুল তুলছেন অনেকেই।

মঙ্গলবার রাতে ব্রাগায় স্পেনের কাছে হেরে যাওয়ার পর অধিনায়কের আর্মব্যান্ড ছুড়ে ফেলে দিয়েছিলেন রোনাল্ডো। তাঁর আচরণ দেখেই প্রকাশ পাচ্ছিল দেশকে নেশনস কাপের শেষ চারে না তুলে দিতে পারায় তিনি কতটা হতাশ। কিছুদিন আগে সিআর সেভেন জানিয়েছিলেন, বিশ্বকাপের পর তিনি অবসর নেবেন না। পর্তুগালের জার্সিতে ২০২৪ সালের ইউরো কাপে তিনি খেলতে চান। তবে তাঁর বর্তমান পারফরম্যান্সের জন্য অনেকেই বলতে শুরু করেছেন, অন্যদের সুযোগ দেওয়ার জন্য সর্বকালের সেরা ফুটবলার হলেও তাঁর সরে আসা উচিত। ফলে এখান থেকে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে যে, আসন্ন ফুটবল বিশ্বকাপে পর্তুগাল দলে তাঁর জায়গা কী? মাঠে নাকি বেঞ্চে?

পাকিস্তান দলে যদি একটা 'হার্দিক পান্ডিয়া' থাকত। যিনি গুরুত্বপূর্ণ ওভারগুলিতে বল করে তুলে নিতেন উইকেট। ব্যাট হাতে ম্যাচ ফিনিশ করার ক্ষমতা রাখতেন। পাকিস্তান দলে এমন একজনকে চাইছেন শাহিদ আফ্রিদি।


 চোখ বন্ধ করে তাঁর উপর ভরসা রাখেন সমর্থকরা। ক্যাপ্টেন রোহিত শর্মার আস্থাভাজন, ভারতীয় দলের সম্পদ হার্দিক পান্ডিয়া (Hardik Pandya)। নিঃসন্দেহে টি-২০ বিশ্বকাপে (T20 World Cup) প্রতিপক্ষ দলগুলির বড় মাথাব্যথা হতে চলেছেন মেন ইন ব্লু অলরাউন্ডার। বল হাতে প্রয়োজনে উইকেট তুলে নিতে সক্ষম। ব্যাট হাতে ম্যাচ ফিনিশের ক্ষমতা রাখেন। বড় শট খেলা, প্রয়োজনের সময় দলকে টেনে তোলার ক্ষমতা রাখেন। ঠান্ডা মাথায় নেতৃত্ব দিতেও সিদ্ধহস্ত। গত মরসুমের আইপিএল এবং সদ্য সমাপ্ত এশিয়া কাপ তার বড় উদাহরণ। এমন একজন খেলোয়াড় যে কোনও টিম তাদের দলে চাইবে। পাকিস্তানও তার ব্যতিক্রম নয়। জাতীয় দলের পেস অলরাউন্ডারের মতো প্রতিভা সম্পন্ন খেলোয়াড় যদি তাদের দলেও থাকত…আক্ষেপ শোনা গেল পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক শাহিদ আফ্রিদির (Shahid Afridi) মুখে।

তিনি বলেন, “হার্দিক পান্ডিয়ার মতো খেলোয়াড়ের দলে প্রয়োজন রয়েছে। নির্ভরযোগ্য কেউ একজন। যিনি লোয়ার অর্ডারে নেমে এসে ম্যাচ ফিনিশ করার মতো দায়িত্ব নেবেন। পাশাপাশি বোলিংয়েও সাহায্য করবেন। আপনি কি মনে হয় আমাদের দলে এমন কোনও ম্যাচ ফিনিশার আছেন?” পাকিস্তানের বিরুদ্ধে এশিয়া কাপের ম্যাচে চলতি বছরের সেরা পারফরম্যান্স দেখা গিয়েছে হার্দিক পান্ডিয়ার ব্যাটে। নির্ধারিত ৪ ওভারে ২৫ রানে ৩টি উইকেট নেওয়ার পর ১৭ বলে ৩৩ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলে ভারতকে ৫ উইকেটে ম্যাচ জেতান।



স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, উদ্ধারণপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পড়ুয়া ওই চার জন।


স্কুল যাওয়ার পথে চার খুদে পড়ুয়াকে গাড়িতে তুলে অপহরণের চেষ্টা। এক গাড়ি চালকের বিরুদ্ধে অপহরণের অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসীরা দেখতে পেয়ে উদ্ধার করে চার পড়ুয়াকে। এর পর উত্তেজিত জনতা ভাঙচুর চালায় ওই চাকা গাড়িতে। গাড়ির চালককে ব্যাপক মারধর করেন এলাকাবাসীরা। পূর্ব বর্ধমানের কেতুগ্রামের উদ্ধারণপুরে বুধবার ঘটেছে ঘটনা। ঘটনার জেরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায় ওই এলাকায়। পুলিশ এসে অভিযুক্তকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, উদ্ধারণপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পড়ুয়া ওই চার জন। বুধবার দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী দিশা মাল এবং রনিতা বালা, তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী সুকন্যা বিশ্বাস এবং তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র প্রীতম দে হেঁটে স্কুলে যাচ্ছিল। মাঝ রাস্তায় একটি মারুতি গাড়ীর চালক সুজিত দাস তাদের গাড়িতে করে স্কুলে ছেড়ে দেওয়ার কথা জানান। কিন্তু ওই পড়ুয়ারা গাড়িতে যেতে রাজি হয়নি। তখন ওই চালক জোর করে পড়ুয়াদের গাড়িতে তোলার চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ। তখনই পড়ুয়াদের চিৎকারে ছুটে আসেন গ্রামবাসীরা। জানা গিয়েছে, অভিযুক্তের বাড়ি বীরভূম জেলার বলভপুরে।

রনিতা বালা নামের ছাত্রী বলেছ, “আমরা স্কুলে যাচ্ছিলাম। তখন ওই গাড়ি আমাদের দেখে দাঁড়ায়। চালক আমাদের বলে স্কুলের দিকেই গাড়ি যাবে। আমাদের যেতে বলে। আমরা যেতে চাইনি। হেঁটেই স্কুলে যাব বলেছিলাম। এর পরই আমাদের গাড়িতে তোলার চেষ্টা করে।”

এলাকাবাসী পড়ুয়াদের চিৎকারে ছুটে আসে। তার পর গাড়িতে ভাঙচুরের পাশাপাশি মারধরে করে অভিযুক্ত চালককে। এর পর কেতুগ্রাম থানার পুলিশ এসে উদ্ধার করে চালককে। তাঁকে কেতুগ্রাম থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। ওই পড়ুয়া এবং তাদের অভিভাবকরাও গিয়েছিল থানায়। অভিভাবকদের অভিযোগ, তাঁদের বাচ্চাদের অপহরণ করার চেষ্টা চালিয়েছিল ওই অভিযুক্ত। তাঁর শাস্তির দাবিও জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
১৯২৯ সালে জন্মগ্রহণ করেন লতা মঙ্গেশকর। তিনি কয়েক দশক ধরে প্লেব্যাক গানে রাজত্ব করেছিলেন।
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বুধবার আইকনিক গায়িকা লতা মঙ্গেশকরকে তাঁর জন্মবার্ষিকীতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন যে বুধবার অযোধ্যার একটি চকের নামকরণ করা হবে তাঁর নামে। তিনি যোগ করেছেন সঙ্গীতশিল্পীর প্রতি উপযুক্ত শ্রদ্ধা। প্রধানমন্ত্রী টুইট করে লিখেছেন, “লতা দিদিকে তাঁর জন্মবার্ষিকীতে স্মরণ করছি। অনেক কিছু আছে যা আমি মনে করি… অসংখ্য ইন্টারঅ্যাকশন রয়েছে যাতে তিনি অনেক স্নেহ বর্ষণ করতেন। আমি আনন্দিত যে আজ, অযোধ্যায় একটি চকের নামকরণ করা হবে তাঁর নামে। এটি সর্বশ্রেষ্ঠ ভারতীয় আইকনের একজনের প্রতি উপযুক্ত শ্রদ্ধাঞ্জলি।

তিনি পরলোক গমন করেন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জি কিষাণ রেড্ডি মঙ্গলবার জানিয়েছিলেন যে তিনি অযোধ্যার একটি চৌরাস্তার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন যা কিংবদন্তি গায়িকা লতা মঙ্গেশকরের নামে নামকরণ করা হয়েছে ২৮ সেপ্টেম্বর তাঁর ৯৩ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে।
ইউপি মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ অযোধ্যার চকের নাম ভারতরত্ন সম্মানীর নামে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, তিনি ৬ ফেব্রুয়ারি একাধিক অঙ্গ খারাপ হওয়ার কারণে প্রয়াত হওয়ার কয়েকদিন পরেই। চৌরাস্তায় ১৪ টন ওজনের একটি ৪০ ফুট লম্বা এবং ১২ মিটার উঁচু বীণা ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি ও পর্যটন মন্ত্রী একটি টুইটে চকের নতুন চেহারার গ্রাফিক ভিজ্যুয়াল চিত্রিত একটি ভিডিয়ো শেয়ার করেছেন।

“শ্রদ্ধাঞ্জলি হিসাবে এবং কিংবদন্তী গায়িকা প্রয়াত লতা মঙ্গেশকরজির সম্মানে, অযোধ্যার বিখ্যাত নয়া ঘাট ক্রসিংকে ‘লতা মঙ্গেশকর চক’ নামে নামকরণ করা হবে৷ আগামীকাল, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২ তারিখে মাননীয় উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথজির সঙ্গে যোগ দেবো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে,” কিষাণ রেড্ডি শব্দ পর্যটন দিবসে টুইট করে বলেছেন। পদ্মশ্রী পুরস্কারপ্রাপ্ত রাম সুতার বিশাল ভাস্কর্যটি তৈরি করেছেন।

কাজের কারণ দেখিয়ে মঙ্গলবার দিল্লিতে ইডি কর্তাদের সঙ্গে দেখা করেন জ্ঞানবন্ত বলে জানা যাচ্ছে।


নির্দিষ্ট দিনের আগেই দিল্লিতে এসে ইডি দফতরে দেখা করেন জ্ঞানবন্ত সিং। কয়লা পাচার মামলায় বুধবার বেলা ১১টায় দিল্লিতে ইডি-র দফতরে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল জ্ঞানবন্ত সিংকে। কিন্তু কাজের কারণ দেখিয়ে মঙ্গলবারই দিল্লিতে ইডি কর্তাদের সঙ্গে দেখা করেন জ্ঞানবন্ত বলে জানা যাচ্ছে। এই নিয়ে দ্বিতীয়বার জ্ঞানবন্তকে ইডি দিল্লিতে তলব করে।

কয়লা পাচার মামলাতে তলব করা হয়েছিল কলকাতা পুলিশের ডিসি আকাশ মেঘারিয়াকে। ২৬ সেপ্টেম্বর কয়লা পাচার মামলায় ইডি দফতরে হাজিরা দেন কলকাতা পুলিশের ডিসি সাউথ আকাশ মাঘারিয়া। তবে জ্ঞানবন্ত সিং-কে তলব করার পরই নির্দিষ্ট দিনের আগে আধিকারিকদের সঙ্গে দেখা করেন তিনি।

এর আগে এই মামলাতে আট আইপিএস অফিসারকে তলব করা হয়েছে। সূত্রের খবর, আকাশ মেঘারিয়াকে ইতিমধ্যেই কয়লা পাচার মামলা সংক্রান্ত একাধিক বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। সেখান থেকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য় তদন্তকারীদের হাতে এসেছে। এবার জ্ঞানবন্তের কাছ থেকেও বেশ কিছু তথ্য পেতে চান তদন্তকারীরা। তথ্য মিলিয়ে দেখা হবে বলেও মনে করা হচ্ছে।
.ইতিমধ্যেই এই মামলায় নাম জড়িয়েছে মন্ত্রী মলয় ঘটকের। তাঁর বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছেন তদন্তকারীরা। এক সঙ্গে মন্ত্রীর ৬ বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছেন তাঁরা। চলতি মাসের শুরুর দিকেই তাঁকে ডালহৌসির সরকারি বাসভবনে জিজ্ঞাসাবাদ করছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই। সূত্রের খবর, মন্ত্রীর বিরুদ্ধে কয়লা পাচার মামলায় বেশ কিছু তথ্য হাতে এসেছে। এই মামলা গোটাতে এবার তেড়েফুঁড়ে উঠেছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা।
সোশ্যাল মিডিয়ায় ভূতের ঘুরে বেড়ানোর ভিডিয়ো ভাইরাল হতেই নড়েচড়ে বসেছে পুলিশও। স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে অহেতুক আতঙ্ক তৈরি করার জন্য পুলিশ অজ্ঞাত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে ভেলপুর পুলিশ স্টেশনে অভিযোগ দায়ের করেছে।


ঘড়ির কাঁটা ১০টা ছুঁইছুঁই। চোখের নিমেষে ফাঁকা হয়ে গেল রাস্তা। যে যার ঘরে ঢুকে দরজায় খিল দিলেন। কেন? রাত বাড়লেই যে দেখা মিলছে ‘তেনাদের’। কখনও বাড়ির ছাদে বসে পা দুলাচ্ছেন, কখনও আবার এক ছাদ থেকে আরেক ছাদে লাফিয়ে বেড়াচ্ছেন। ভূতের ভয়েই কাঁটা বারাণসীর বাসিন্দারা। ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়াতেও ভাইরাল হয়েছে বেশ কয়েকটি ভিডিয়ো, যেখানে সাদা রঙের ‘ভূতে’র দেখা মিলেছে।



জানা গিয়েছে, বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরেই ভূতের উপদ্রব দেখা দিয়েছে। রাত হলেই বিভিন্ন বাড়ির ছাদে দেখা মিলছে সাদা রঙের এক অবয়বের। গড়ন অনেকটাই মানুষের মতো, কিন্তু তার চোখ-মুখ নেই। সম্প্রতি এক ব্যক্তি সন্দেহজনক ওই অবয়বকে পাশের একটি বাড়ির ছাদে বসে থাকতে দেখেই ভিডিয়ো করেন এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। এরপর থেকেই গোটা এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে ভূতের আতঙ্ক। স্থানীয় বাসিন্দারা ভয়ে ছাদে যাওয়া তো দূর, রাত বাড়লেই বাড়ি থেকেও বেরতে রাজি হচ্ছেন না।

এদিকে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভূতের ঘুরে বেড়ানোর ভিডিয়ো ভাইরাল হতেই নড়েচড়ে বসেছে পুলিশও। স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে অহেতুক আতঙ্ক তৈরি করার জন্য পুলিশ অজ্ঞাত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে ভেলপুর পুলিশ স্টেশনে অভিযোগ দায়ের করেছে। ওই থানার ইন্সপেক্টর রমাকান্ত দুবে বলেন, “ভিডিয়োটি দেখে সাধারণ মানুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। বাসিন্দাদের অভিযোগের ভিত্তিতেই আমরা এফআইআর দায়ের করেছি। ওই এলাকায় পুলিশের পেট্রোলিংও বাড়ানো হয়েছে, দ্রুত দুষ্কৃতীরা ধরা পড়বে।”

জানা গিয়েছে, সাদা চাদরে মোড়া ওই অবয়বকে প্রথমে বারাণসীর বাড়ি গাবি এলাকার ভিডিএ কলোনিতে দেখা গিয়েছিল। একটি ছায়াকে ছাদের উপর দিয়ে অনায়াসে হেঁটে যেতে দেখা যায়। এক ব্যক্তি ওই ভিডিয়ো রেকর্ড করে হোয়াটসঅ্য়াপে পাঠাতেই তা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। এর দিন কয়েক পরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ধরনের একাধিক ভিডিয়ো ভাইরাল হয়, প্রত্যেকটি ভিডিয়োতেই ওই সাদা অবয়বকে ঘোরাফেরা করতে দেখা যায়। অধিকাংশই ওই ভিডিয়োকে ভুয়ো বলে মনে করলেও, স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হওয়ায় পুলিশে অভিযোগ জানানো হয়েছে। বারাণসীর ডিসিপি জানিয়েছেন, এই ধরনের কোনও ঘটনা ঘটেনি এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন ভিডিয়ো দেখলেও যেন তা ফরওয়ার্ড না করা হয়।